আমরুল্লার বাড়িতে তল্লাশিতে মিলেছে সাড়ে ৬ লাখ মার্কিন ডলার, ১৮টি সোনার ইট! দাবি তালিবানের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: প্রতিরোধের ঘাঁটি পঞ্জশির উপত্যকা(panjshir valley) কব্জা করেছে বলে ঘোষণা করেছে তালিবান। দাবি উড়িয়ে পাল্টা সংঘর্ষ বহাল রয়েছে বলে জানাচ্ছে আহমেদ মাসুদের প্রতিরোধ বাহিনী। তবে মাসুদ ও তাঁর সহযোগী তথা প্রাক্তন আফগান ভাইস প্রেসিডেন্ট আমরুল্লা সালেহর (amrullah saleh) গতিবিধির কোনও খবর পাওয়া যাচ্ছে না। শুক্রবার খবর ছড়ায়, প্রতিরোধ বাহিনীর শেষ দুর্গ পঞ্জশিরে লড়াইয়ের সময় তালিবানের হাতে খতম হয়েছেন আমরুল্লার ভাই রোহুল্লাহ আজিজি। মেরে ফেলার আগে তাঁর ওপর অত্যাচার করা হয়েছে বলে খবর। তার মধ্যেই তালিবানের (taliban) নতুন দাবি, তারা আমরুল্লার বাড়িতে তল্লাসি চালিয়ে নগদ সাড়ে ৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (us dollar) , ১৮টি সোনার ইট (gold bricks) পেয়েছে। ট্যুইটারে একথা বলেছে তারা। আফগানিস্তানের এক সাংবাদিক সেটি শেয়ার করেছেন, যাতে দুটি স্যুটকেশভর্তি নগদ অর্থ, সোনার ইট দেখা যাচ্ছে। ট্যুইটটি  করেছেন তালিবানের মাল্টি মিডিয়া শাখার প্রধান আহমাদুল্লাহ মুত্তাকি।  তাতে তালিবান জঙ্গিদের স্যুটকেশ ঘিরে বসে থাকতে, সেই অর্থ, ইটের ছবি তুলতে দেখা যাচ্ছে। আমরুল্লার বুকশেলফের সামনেও পোজ দিতে দেখা যায় তালিবান জঙ্গিদের।

 

আরও পড়ুন—কংগ্রেস তাড়াতেই সিপিএমে যোগ বড় নেতার, পৌঁছে গেলেন রাজ্য দফতরে

বিগত আশরফ গনি জমানার প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট আমরুল্লা তালিবান কাবুলে পা দিতেই গনি পালিয়ে যাওয়ার পর নিজেকে কেয়ারটেকার প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেছিলেন।  তিনি কিছুতেই তালিবানের কাছে ধরা দিতে চাননি। ৩ সেপ্টেম্বরও তিনি ট্যুইট করেন, প্রতিরোধ চলছে, চলবে। আমার মাটি, তার মর্যাদা রক্ষা করছি আমি। সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া  সাক্ষাত্কারেও  তিনি ঘোষণা করেন, তিনি চান না, আফগানিস্তান তালিবানিস্তানে পরিণত হোক। আমরা তালিবানের আমিরি শাসন, ওদের স্বৈরতন্ত্র, বলপ্রয়োগের মাধ্যমে ক্ষমতা দখলকে প্রত্যাখ্যান করছি। গত ৬ সেপ্টেম্বর পঞ্জশিরের গভর্নরের বাসভবনের মাথায় তালিবান নিজেদের পতাকা উড়িয়ে  দাবি করে, আফগানিস্তানের শেষ প্রতিরোধের ঘাঁটিও পুরোপুরি তাদের দখলে।

৭ সেপ্টেম্বর মোল্লা মহম্মদ হাসান আখুন্দের নেতৃত্বে অন্তর্বর্তী সরকার ঘোষণা করে তালিবান। তাদের মুখ বলে পরিচিত আবদুল গনি বরাদরকে তাঁর ডেপুটি করা হয়।

তালিবানের লোক নয়, এমন কাউকে সরকারে রাখার দাবি করেছিল আন্তর্জাতিক মহল। কিন্তু তাতে কর্ণপাত করার কোনও লক্ষণই দেখায়নি তালিবান। এমনকী সরকারে নেই কোনও মহিলাও!

 

 

 

 

 

 

 

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More