রাজারহাটে ‘তালকুটির’! প্রাসাদের জাঁকজমক নয়, কুটিরের শান্তির কথা বললেন হর্ষ নেওটিয়া

0

ইকো পার্কের পয়লা নম্বর গেট দিয়ে ঢুকে সোজা গেলেই চোখে পড়বে ইটের অসাধারণ নকশায় তৈরি তাল কুটির কনভেনশন সেন্টার। উদ্বোধনের আগে অম্বুজা নেওটিয়া গ্রুপের কর্ণধার হর্ষবর্ধন নেওটিয়ার সঙ্গে কথা বললেন সোমা লাহিড়ী

আপনাদের প্রায় সব প্রপার্টির নামে কুটির শব্দটা থাকে। বিশেষ কারণ আছে?

একেবারে অন্যরকম প্রশ্ন করলেন। আসলে আমাদের কোনও প্রপার্টিতেই আপনি খুব ঝকমকে সাজসজ্জা দেখবেন না।বরং খুব শিল্পসম্মত স্নিগ্ধতায় সাজানো হয় আমাদের প্রত্যেকটা জায়গা। মহল বললে যে জাঁকজমক বোঝায় ,তা কোথাও নেই। এমনকী রাজ কুটিরেও না। অথচ ব্যবস্থাপনা তারকাখচিত।

মানে ‘ছায়া সুনিবিড় শান্তির নীড়!’

এক্কেবারে। এখানেই দেখুন, চারদিকে তালগাছের সারি, বিশাল ওয়াটার বডি, ইটের মনোরম স্ট্রাকচার, ভেতরের সাজেও দেশজ শিল্পের প্রাধান্য, টেরাকোটা, কাঁথাকাজ, মধুবনী…

নামে তো কনভেনশন সেন্টার, কিন্তু কনভেনশনাল নয়, অন্যরকম। তাই তো?

এক্সজ্যাক্টলি। অথচ সুযোগ সুবিধে প্রচুর। বিশাল বড় বড় ছ’টা কনফারেন্স হল, হিউজ টেরেস, মাস দুয়েকের মধ্যে খুলে যাবে সবরকম খাবারদাবার আর পানীয়র আয়োজনে ভরপুর রেস্তোরাঁ। শুধু কনফারেন্স নয়, বিয়ে, রিসেপশন, এই সব সমাজিক অনুষ্ঠানের জন্যও এটা খুব ভাল। সেই সঙ্গে তাজ গ্রুপের সঙ্গে যৌথ ভেঞ্চারে এখানে তৈরি হবে একটা হোটেল। সম্ভবত আশিটা ঘর থাকবে।

তাজের সঙ্গে আর কোনও যৌথ প্রজেক্ট আছে?

হ্যাঁ। সিকিমের গুরাস কুটির, সিটি সেন্টার পাটনা, চিয়াকুটির, দার্জিলিঙের প্রপার্টি, তাল কুটির তো আছেই, স্বভূমির রাজকুটির নিয়েও কথা চলছে। তবে রায়চকের গঙ্গা কুটির এখনও শুধু আমাদের।Banquets Eco Park's Taal Kutir Convention Centre all set to open on December 1 - Telegraph India

শুনেছি সুন্দরবনেও আপনারা রিসর্ট করবেন?

প্ল্যানিংয়ে আছে। কিন্তু এখনই নয়। আগে এই প্রোজেক্টগুলো একটু এগিয়ে যাক।আসলে প্যান্ডেমিকের জন্য সব কিছু পিছিয়ে গেল।

সরকারের বিশ্ববাংলা কনভেনশনাল হল তো আপনার এই প্রোজেক্টের  খুব কাছে। কম্পিটিশনও তো হবে?

(হাসতে হাসতে) হ্যাঁ, অল্প দূরত্বের মধ্যেই রয়েছে বিশ্ববাংলা। কিন্তু কম্পিটিশন নেই। বরং যাঁরা ওখানে জায়গা পাবেন না, তাঁরা এখানে ট্রাই করবেন। রাজারহাট নিউ টাউনে তো তিন-চার কিলোমিটারের মধ্যে ন’টা স্টার হোটেল হয়েছে। অসুবিধে কী হচ্ছে ?
সিঙ্গাপুরে দেখেছি একটা এলাকা জুড়ে শুধু কনফারেন্স হল, হোটেল, কনভেনশন সেন্টার। বরং এক বাসে বিভিন্ন হোটেলের মানুষজনকে নিয়ে যাওয়া হয় কনফারেন্সে।

সুইসোতেল কি বন্ধ?

না না। রেনভেশন চলছে। আশা করছি মাস দুয়েকে খুলে যাবে ।

তাল কুটিরের এই প্রপার্টির আর কী প্লাস পয়েন্ট?

সম্ভবত পরের বছরই চালু হয়ে যাবে মেট্রো। ওয়াকিং ডিস্টেন্সে স্টেশন। আধা ঘণ্টায় এখান থেকে সাউথ ক্যালকাটায় পৌঁছে যাওয়া যাবে।

এখন তো বেশির ভাগ কনফারেন্স ভার্চুয়াল হচ্ছে। সমাজিক অনুষ্ঠানেও কম গ্যাদারিং, এই সময় তালকুটির কতটা ব্যবসা করবে?

আমরা আশাবাদী। এখন কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আছে কোভিড। সামনের বছরের মাঝামাঝি সময়ে অবস্থা আরও স্বাভাবিক হবে, বলছেন সকলে। সেই আশা নিয়ে এগোতে হবে আমাদের।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.