পুজোয় মাস্কহীন তরুণ সমাজ, রাস্তায় ঘুরে ঘুরে সচেতনতার পাঠ দিচ্ছেন যাদবপুরের পড়ুয়ারা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: চেনা ছন্দে, চেনা আনন্দের তালে মেতেছে পুজোর (Puja) শহর। গত বছর কোভিড সংক্রমণের যে ছায়া গ্রাস করেছিল বাংলাকে, তার রেশ এবার প্রায় নেই বললেই চলে। কোভিডের গ্রাফও বেশ নীচের দিকে। আবার ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজও চলছে জোর কদমে। কিন্তু উনিশ থেকে বিশ হলেই যে এই মারণ ভাইরাস আবার ফিরতে পারে তার ভয়ঙ্করী রূপে, তা পুজোর আনন্দে যেন ভুলতে বসেছে শহরবাসী। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা সে কথা মনে করিয়ে দিতেই পথে নামলেন।

দেশ ছাড়তে চাইছেন অনেক সেলেবের ছেলে-মেয়েরা, আরিয়ান কাণ্ডে দাবি কেআরকে-র

সোমবার রাত থেকেই দক্ষিণ কলকাতার একাধিক বড় পুজো মণ্ডপের বাইরে দেখা গেছে যাদবপুরের পড়ুয়াদের। ঠাকুর দেখতে হুল্লোড় করতে নয়, কলকাতার আমোদপ্রিয় মানুষকে তাঁরা মনে করিয়ে দিচ্ছেন কোভিডের কাঁটা এখনও সরেনি। কোনওভাবেই যেন বিধিনিষেধে, সাবধানতায় ঢিলেমি না আসে।

রাস্তাঘাটে অনেককেই দেখা যাচ্ছে মাস্ক ছাড়া, স্যানিটাইজারের ব্যবহারও বিলুপ্তপ্রায়। পড়ুয়ারা নিজেদের উদ্যোগে এই সমস্ত মানুষকে খুঁজে বের করছেন, দিচ্ছেন সচেতনতার পাঠ। মাস্ক না পরার প্রবণতা বেশি দেখা যাচ্ছে তরুণ তরুণীদের মধ্যেই। তাদের হাতে মাস্ক তুলে দিয়েছেন যাদবপুরের পড়ুয়ারা।

রাস্তায় বেরিয়ে মাত্র কয়েক মাস আগের ভয়াবহতার কথা আরও একবার মনে করিয়ে দিচ্ছেন তাঁরা। মাস্কহীন জনতাকে বোঝাচ্ছেন, পুজোয় আপনি যেমন আনন্দ করতে বেরিয়েছেন, তেমনই পরিকল্পনা ছিল আরও অনেকের। কিন্তু কোভিড তাঁদের কাছের মানুষকে কেড়ে নিয়েছে, তাই এবারের পুজো অনেকের কাছেই বেমানান। তাঁদের কথা ভেবে অন্তত মাস্কটুকু পরুন। যতটা সম্ভব দুরত্ববিধি মানুন। সুস্থ থাকুন।

এই কাজ করার জন্য একটি ট্যাবলো গাড়ির ব্যবস্থাও করে নিয়েছে যাদবপুরের পড়ুয়ারা। পাশে আছেন শিক্ষকরাও। সোমবার সন্ধ্যায় দক্ষিণ কলকাতার রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে তাঁদের সচেতনতার পাঠ ছড়াতে দেখা গেছে।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকা ‘সুখপাঠ’

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More