পুরভোট ৪-৬ সপ্তাহ পিছোনো যায় কিনা, নির্বাচন কমিশনকে বিবেচনা করতে বলল হাইকোর্ট

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: রাজ্যে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে কোভিড। এই পরিস্থিতিতে চার কর্পোরেশনের ভোট ৪-৬ সপ্তাহ পিছিয়ে দেওয়া যায় কিনা তা নির্বাচন কমিশনকে বিবেচনা করতে বলল হাইকোর্ট। ভোট পিছিয়ে দেওয়ার মামলার নির্দেশে আদালত বলেছে, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে এই সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

আগামী ২২ জানুয়ারি বিধাননগর, আসানসোল, চন্দননগর ও শিলিগুড়ি কর্পোরেশনের ভোট হওয়ার কথা। কিন্তু ক্রমবর্ধমান কোভিড পরিস্থিতিতে তা পিছিয়ে দেওয়ার আর্জি নিয়ে জনস্বার্থ মামলা হয় হাইকোর্টে। গতকাল এই মামলার শুনানিতে কমিশনের প্রতি একপ্রকার অসন্তোষ প্রকাশ করেছিল আদালত। শুধু তাই নয়, বৃহস্পতিবারের শুনানিতে দেখা গিয়েছিল কমিশন আর রাজ্য সরকার ভোট পিছিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা আসলে কার তা নিয়ে একে অন্যের কোর্টে বল ঠেলছে।

মামলাকারীর আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য তাঁর সওয়ালে বলেন, এই পরিস্থিতিতে ভোট পিছিয়ে দেওয়া হোক। বিজেপির আইনজীবীও একই কথা বলেন। পাল্টা কমিশনের তরফে বলা হয়, কমিশনের ক্ষমতা নেই ঘোষিত নির্বাচনকে পিছিয়ে দেওয়ার। যদি রাজ্য না বিপর্যয় ঘোষণা করে।

এরপরেই আদালত কমিশনের উদ্দেশে বলে,সংবিধান তো কমিশনকে নির্বাচন পরিচালনার সমস্ত ক্ষমতা দিয়েছে। তাহলে কেন কমিশন বলছে, রাজ্যের সঙ্গে কথা না বলে কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারবে না? আদালত এও বলেছে, কমিশন কোভিড পরিস্থিতি অনুধাবন করতে অক্ষম।

গতকাল শুনানির পর রায়দান স্থগিত রেখেছিল হাইকোর্ট। এদিন রায় দিয়ে আদালত কমিশনকেই ভোট পিছিয়ে দেওয়ার বিষয় বিবেচনা করতে বলেছে। অর্থাৎ যা সিদ্ধান্ত নেওয়ার তা নিতে হবে কমিশনকেই। এবং তা জানাতে হবে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে। এখন দেখার কী সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.