গঙ্গাসাগর মেলা জিন্দাবাদ, হইহুল্লোড়ের দরকার নেই: মমতা

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: একদিকে হইহুল্লোড়ের দরকার নেই, আবার পাশাপাশিই গঙ্গাসাগর মেলা জিন্দাবাদ। হইহুল্লোড় বাদ দিয়ে মেলা হয় নাকি! কিন্তু তিনি তো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, তাই এই দুইকে মেলালেন তিনি মেলালেন। বললেন, “এবার বেশি হইহুল্লোড়ের দরকার নেই… গঙ্গাসাগর মেলা জিন্দাবাদ!”

বুধবার আউটট্রাম ঘাটে সাগরমেলার সূচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই অনুষ্ঠানে তিনি অনুরোধ করেন, আদালত যে বিধি বেঁধে দিয়েছে সেই মতোই এবার ছোট করে গঙ্গাসাগর মেলা করা হোক। তিনি বলেন, “কোভিড বিধি মেনে যা করা উচিত তাই করুন। বেশি বড় করে কিছু করার দরকার নেই। ছোট করে করুন, মন থেকে করুন। এবার বেশি হইহুল্লোড়ের দরকার নেই।”

এবার কোভিড পরিস্থিতিতে আদালতের বিধি মেনে গঙ্গাসাগর মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সেই কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে এদিন মমতা বলেন, “ওমিক্রন ঘরে ঘরে ছেয়ে গেছে। আগে কখনও এতটা ছড়ায়নি কোভিড। এখন প্রতিটা পরিবারকে ছুঁয়ে যাচ্ছে। বাইরে থেকে আসছেন তাদের কোভিড থাকলে আলাদা রাখুন, পুলিশের সাহায্য নিন। মাথায় রাখবেন, একটা গাড়িতে একজন কোভিড রোগী গেলে সবার কোভিড যাঁদের হয়ে যাবে। কোভিড বিধি মেনে যা করা উচিত তাই করুন।”

মেলার উদ্যোক্তাদের উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, বেশি লোক পাঠাবেন না। আদালত যে বিধি বেঁধে দিয়েছে তা মেনে চলা আমাদের কর্তব্য। আরটিপিসিআর যাঁর নেই তিনি যেতে পারবেন না। এবার এটুকু আমাদের করতে হচ্ছে।

কোভিডের সংক্রমণ কতটা মারাত্মক আকার নিয়েছে তা মুখ্যমন্ত্রীর কথাতেই এদিন স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে। মমতা বলেন, আমাদের বন্ধুরা জীবন দিয়ে কাজ করছেন। ডাক্তার, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, পুরসভার কর্মী, পুলিশ, সাংবাদিক—সবাই আক্রান্ত। তারপরেও তাঁরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, কেন্দ্র থেকে রাজ্যের মন্ত্রী, পুলিশ, সাংবাদিক—সবাই আক্রান্ত।

এদিন আউটট্রাম ঘাটে যাওয়ার আগে সিমলা স্ট্রিটে স্বামী বিবেকানন্দের জন্মভিটেয় গিয়ে জন্মজয়ন্তীতে শ্রদ্ধা জানিয়ে আসেন মুখ্যমন্ত্রী। আউটট্রাম ঘাটের বক্তৃতা শেষ করেন এই বলে—‘গঙ্গাসাগর মেলা জিন্দাবাদ।’

কোভিড পরিস্থিতিতে মেলা করা নিয়ে বিভিন্ন মহল থেকে প্রশ্ন উঠেছিল। সম্প্রতি সাগরের প্রস্তুতি দেখতে গিয়ে মমতা বলেছিলেন, মেলা আমরা আটকাব কী করে। উত্তরপ্রদেশ, বিহার থেকে যাঁরা আসবেন তাঁদের আমরা আটকাব কী করে? যদিও তারপর কোভিডের বাড়বাড়ন্ত যে ভাবে হয়েছে তাতে নবান্নকেও অনেক বিধি জারি করতে হয়েছে। জনস্বার্থ মামলায় হাইকোর্টও সাগরমেলায় যাওয়ার ক্ষেত্রে বিধি বেঁধে দিয়েছে। এদিন মুখ্যমন্ত্রী আবেদন জানান, সেই নির্দেশ যেন সবাই মেনে চলেন।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.