কালো কোট পরে আছেন বলেই..! কোভিডে মৃত আইনজীবীদের পরিবারের ক্ষতিপূরণ চেয়ে পিটিশন খারিজ সুপ্রিম কোর্টের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কোভিড ১৯ (covid 19) বা অন্য কোনও অসুখে ৬০ বছর বয়সের নীচে মারা যাওয়া আইনজীবীদের পরিবারকেও (lawyer family) ক্ষতিপূরণ দিতে হবে, এই  দাবিতে পিটিশন জমা পড়ল সুপ্রিম কোর্টে (supreme court)। আবেদনকারীর আর্জি, এই মর্মে নির্দেশ দিক সর্বোচ্চ আদালত। কিন্তু আইনজীবীদের জন্য কোনও ব্যতিক্রম হতে পারে না বলে জানিয়ে সেই পিটিশন খারিজ করে দিল বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়, বিচারপতি বিক্রম নাথ  ও বিচারপিত বি ভি নাগরত্নার বেঞ্চ। উল্টে জনৈক আইনজীবী প্রদীপ কুমার যাদবের পিটিশনটিকে ‘প্রচারের স্বার্থবাহী মামলা’ বা ‘পাবলিসিটি ইন্টারেস্ট লিটিগেশন’ তকমা  দিয়ে কার্যতঃ তিরস্কার করে ১০ লাখ টাকা জরিমানা (fine) করেছেন বিচারপতিরা। তাঁরা বলেছেন, কত অসংখ্য মানুষ কোভিড ১৯ এ মারা গিয়েছেন, একজন আইনজীবীর জীবন তো বাকিদের চেয়ে বেশি দামি হতে পারে না। সর্বোচ্চ আদালত প্রাণঘাতী কোভিড ১৯ সংক্রমণের বলি সবার জন্যই ক্ষতিপূরণের সিদ্ধান্তে সায় দিয়েছে।  যাদবকে বিচারপতিরা প্রশ্ন করেন, সমাজের অন্য মানুষের জীবন কি গুরুত্বপূর্ণ নয়!

আরও পড়ুন—–উত্তরপ্রদেশ ডবল ইঞ্জিনের শ্রেষ্ঠ উদাহরণ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত পুজোতেও ভোটপুজো মোদীর

 

যাদব আইনজীবীদের পরিবারগুলির জন্য ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে সওয়াল করেন,মহামারীর মধ্যে অন্য পেশার লোকজনকেও সরকার আর্থিক সাহায্য দিচ্ছে।

এছাড়া সংশ্লিষ্ট পিটিশনে কাট-কপি-পেস্ট করা হয়েছে বলেও অভিমত জানিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত, বলেছে, আইনজীবীরা ক্ষতিপূরণ চেয়ে এরকম জনস্বার্থ মামলা করবেন আর আদালত তাতে সায় দেবে, এমনটা হবে না।

যাদব পিটিশনটি তুলে নিয়ে আরও শক্তপোক্ত যুক্তি দিয়ে নতুন করে পেশ করার অনুমতি চান। কিন্তু তা সত্ত্বেও বেঞ্চ সেটি বাতিল করে জরিমানা ঘোষণা করে বলে, শীঘ্রই ব্যবস্থা নেওয়া হবে যাতে আইনজীবীরা এধরনের পিটিশন দায়ের করা থেকে বিরত থাকেন। বিচারপতিরা বলেন, আইনজীবীদের বোগাস পিটিশন দাখিল বন্ধ করার সময় এসেছে। শুধু কালো কোট পরে আছেন বলেই তার মানে এটা নয়, আপনাদের জীবন অন্যদের চেয়ে বেশি দামি!

যাদব যুক্তি দেন, মহামারী আবহে সব আদালতে কাজ হচ্ছে না, তাই আইনজীবী ও তাদের সহকর্মীদের অস্তিত্ব সঙ্কটে। তীব্র আর্থিক অনটনের মধ্যে কোথা থেকেও সাহায্য না পেয়ে আইনজীবীরা বেঁচে থাকার জন্য অন্য পেশায় চলে যাচ্ছেন।

 

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More