অভিষেক, দোলা, কুণালদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করল বিপ্লব দেবের পুলিশ

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, কুণাল ঘোষদের বিরুদ্ধে ত্রিপুরার খোয়াই থানায় স্বতঃপ্রণোদিত মামলা রুজু করল বিপ্লব দেবের পুলিশ।রবিবারের ঘটনায় খোয়াই থানায় মামলা হয়েছে বলে খবর।

জানা গেছে, গতকাল গভীর রাতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, দোলা সেন, ব্রাত্য বসু, ত্রিপুরার তৃণমূল নেতা সুবল ভৌমিক এবং কুণাল ঘোষ এই পাঁচ জনের বিরুদ্ধে স্বতঃপ্রণোদিত মামলা রুজু করেছে ত্রিপুরা পুলিশ। ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৬ এবং ৩৪ নম্বর ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে।

পাঁচ জন তৃণমূলের নেতা কর্মীকে গ্রেফতারও করা হয়েছে ত্রিপুরায়। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন উত্তম কলুই, যিনি ত্রিপুরায় দেবাংশুদের আশ্রয় দিয়েছিলেন। এদিন সকালে আগরতলার পথে রওনা দিয়েছেন রাজ্যের আইনমন্ত্রী মলয় ঘটক।

পুলিশের অভিযোগপত্রে জানানো হয়েছে, গত ৮ অগস্ট সকালে তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা দেবাংশু ভট্টাচার্য এবং আরও ১৩ জন তৃণমূল নেতানেত্রীকে মহামারী আইনে গ্রেফতার করা হয়েছিল। এই খবর পেয়ে পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু, সাংসদ দোলা সেন এবং কুণাল ঘোষের নেতৃত্বে একদল তৃণমূল নেতা খোয়াই এসে পৌঁছয়। পরে তাঁদের সঙ্গে যোগ দেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও। খোয়াই থানার এসডিপিও রাজীব সূত্রধরের সঙ্গে তাঁরা এই গ্রেফতারি নিয়ে কথা বলতে শুরু করেন। পুলিশের কাছে তাঁরা সকলে বেআইনি দাবি করেছেন। ধৃতদের ছেড়ে দিতে বলেছেন।

পুলিশের অভিযোগ, গ্রেফতার করা ব্যক্তিদের ছাড়া সম্ভব নয়, জানানোর পরেও দাবিতে অনড় ছিলেন অভিষেকরা। এমনকি খোয়াই থানার পুলিশের সঙ্গে তাঁরা খারাপ ব্যবহারও করেছেন। থানায় চেঁচামেচি করেছেন। শুধু তাই নয়, পুলিশকে বিজেপির দালাল বলে অপমান করেছেন অভিষেকরা। এই সমস্ত অভিযোগের ভিত্তিতেই স্বতঃপ্রণোদিত মামলা রুজু করেছে ত্রিপুরা পুলিশ।

পুলিশের আরও অভিযোগ, তাঁদের কাজে বাধা দিয়েছেন তৃণমূল নেতারা। ধৃতদের আদালতে নিয়ে যাওয়ার দেরি হয়েছে তার জন্য। কিন্তু বিশৃঙ্খলা এড়ানোর জন্য পুলিশ তাঁদের উপর বলপ্রয়োগ করেনি।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.