অভিষেক ইস্যুতে কবিতা হাতিয়ার! জবাব, পাল্টা জবাবে কল্যাণ-কুণাল, দেখুন ভিডিও

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কবিতার লড়াই! একটা সময় ছিল যখন কবিয়ালরা নিজেদের মধ্যে কবিতা দিয়ে লড়াই করত, একে অপরকে আক্রমণ করত, কখনও কখনও সেই আক্রমণ ব্যক্তিগত পর্যায়ে উপনীত হত। বহুদিন পর সেই রেওয়াজ আবার ফিরে এল রাজনৈতিক মঞ্চে। বিষয় এক, লড়াই চলল দুই তৃণমূল নেতার মধ্যে। তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় ও দলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ।

প্রসঙ্গত, তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক তথা সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘ডায়মন্ড হারবার মডেল’কে কেন্দ্র করে এই সময় রাজনৈতিক মহলে বিতর্কের অন্ত নেই। বাকযুদ্ধ কম হচ্ছে না তৃণমূলের অন্দরেও। এমনকি বিরোধী শিবিরেরও সেই রেশ অব্যহত। বৃহস্পতিবারের পর সেই রেশ চলল শুক্রবারও। এই বিষয় নিয়ে তৃণমূলের অন্দরেই দু’পক্ষ ভাগ হয়ে গিয়েছে। একপক্ষ যখন অভিষেকের ভাবনাকে সাধুবাদ জানাচ্ছে তখন অপর পক্ষ, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে রেখে অভিষেকের বিরুদ্ধাচারণ করছে।

জবাব, পাল্টা জবাবের খেলায় মেতে তৃণমূলের দুই পক্ষ। এবার একে অপরকে জবাব দিতে আশ্রয় নিল কবিতার। কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় যখন সোশ্যাল মিডিয়ায় কবি শ্রীজাতর লেখা দু’লাইন ধার করে পোস্ট করে আক্রমণ করেন, তার পাল্টা জবাবে কুণাল ঘোষও বেছে নেন অতনু দত্তের এক কবিতার অংশ। যদিও কোন পক্ষই সরাসরি সংঘাতের পর্যায়ে যায়নি।

কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় শুক্রবার এক ফেসবুক পোস্টে লেখেন, ‘মানুষ থেকেই মানুষ আসে, বিরুদ্ধতার ভীড় বাড়ায়; আমরা মানুষ, তোমরা মানুষ, তফাত শুধু শিরদাঁড়ায়।’ রাজনৈতিক মহলের মতে, কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বোঝাতে চেয়েছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধাচরণ করতে শিরদাঁড়ার প্ৰয়োজন হয়, আর যেটা তাঁর আছে। যাঁদের নেই তাঁরা অভিষেককে সমর্থন জানাচ্ছেন।

তৃণমূল সাংসদের এই পোস্টের ঘন্টা খানেক কাটতে না কাটতেই দলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ একটি ফেসবুক পোস্ট করেন। আশ্রয় নেন অতনু দত্তের লেখা ‘শিরদাঁড়া’ নামের এক কবিতার। পুরো কবিতাটিই তিনি তুলে ধরে কিছু জায়গায় দাগ দিয়ে নিজের বক্তব্য বুঝিয়ে দিয়েছেন। লেখেন, ‘শিরদাঁড়ার বৈজ্ঞানিক ও সামাজিক ব্যাখ্যা।’ কবিতার অংশ হিসেবে তিনি নজরে আনেন, ‘মানব জাতি তো শিরদাঁড়াময় উহাতেই সকল বল, না থাকলে দাঁড়া শির নহে খাঁড়া সত্যতাই অচল…’ সেই কবিতা শেয়ার করেই কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাল্টা জবাব দেন কুণাল, বলে মত রাজনৈতিক মহলের।

শুক্রবারই কুণাল ঘোষ টুইট করে লেখেন ‘চ্যাপ্টার ক্লোজড’। আর তার পরেই এই বিতর্ক থিতু হয়ে পড়েছে বলে মনে করেছিলেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। ঠিক সেই মুহূর্তেই নতুন করে এই লড়াইয়ের এক মাত্রা দিল কল্যাণ-কুণালের কবিতার লড়াই।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.