কোভিড ভ্যাকসিনের একটি ডোজ নিয়েছেন এমন মানুষের সংখ্যা ভারতেই সর্বাধিক

দ্য ওয়াল ব্যুরো : গত মঙ্গলবার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের (Health Ministry) ওয়েব সাইটে কোভিড ভ্যাকসিন নিয়ে একটি ই-বুক প্রকাশ করা হয়। তাতে বলা হয়েছে, যাঁরা কোভিড ভ্যাকসিনের একটি ডোজ নিয়েছেন, তাঁদের সংখ্যা ভারতেই সর্বাধিক। গ্রামের টিকাকরণ কেন্দ্রগুলি থেকে দেওয়া হয়েছে ৬২.৫৪ শতাংশ ভ্যাকসিন। শহরাঞ্চলে দেওয়া হয়েছে ৩৬.৩০ শতাংশ ভ্যাকসিন। এছাড়া কেন্দ্রীয় টিকাকরণ কেন্দ্রগুলি থেকে দেওয়া হয়েছে ৭৩ লক্ষ ৪৪ হাজার ভ্যাকসিন।

২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশে যে পরিমাণ ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে, তার ৫২.৫ শতাংশ পেয়েছেন পুরুষরা। ৪৭.৫ শতাংশ পেয়েছেন মহিলারা। ০.০২ শতাংশ পেয়েছেন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষজন। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দাবি, দেশের প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ৬০.৭ শতাংশ কোভিডের একটি ডোজ পেয়েছেন। টিকাকরণের গড় হারও ভারতেই বিশ্বের সর্বাধিক। এদেশে ভ্যাকসিনের দু’টি ডোজ নিয়েছেন ১৮ কোটি ১০ লক্ষ মানুষ। আমেরিকার দু’টি ডোজ নিয়েছেন ১৭ কোটি ৮০ লক্ষ।

কোভিডের সম্মুখসারির যোদ্ধাদের ১০০ শতাংশ একটি ডোজ পেয়েছেন। দু’টি ডোজ পেয়েছেন ৮১.১ শতাংশ। স্বাস্থ্যকর্মীদের ৯৮.৮ শতাংশ পেয়েছেন প্রথম ডোজ। দু’টি ডোজ পেয়েছেন ৮৪.৭ শতাংশ।

সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মনসুখ মালব্য বলেন, এখনও পর্যন্ত দেশে ভ্যাকসিনের ৭৫ কোটি ডোজ দেওয়া হয়েছে। বর্তমান হারে টিকাকরণ চললে ডিসেম্বরের মধ্যে দেশের জনসংখ্যার ৪৩ শতাংশকে ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব হবে। কেন্দ্রীয় সরকার মনে করে, কোভিডের তৃতীয় ওয়েভকে ঠেকাতে গেলে ডিসেম্বরের মধ্যে অন্তত ৬০ শতাংশ নাগরিককে ভ্যাকসিনের দু’টি ডোজ দেওয়া প্রয়োজন।

একটি সমীক্ষায় জানা গিয়েছে, বাচ্চাদের ভ্যাকসিন দেওয়া হোক, এমনটা চাইছেন দেশের অন্তত ৬৩ শতাংশ বাবা-মা। কোভিশিল্ড বা কোভ্যাকসিন নয়, শিশুদের জন্য ভারতে ছাড়পত্র পেয়েছে জাইদাস ক্যাডিলার ভ্যাকসিন জাইকভ ডি। সূচ না ফুটিয়েই এই ভ্যাকসিন দেওয়া যাবে। তবে ছাড়পত্র পেলেও এখনও ভারতে জাইদাসের ভ্যাকসিন দেওয়া চালু হয়নি।

শিশুদের ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হলে ৬৩ শতাংশ বাবা-মা তাদের টিকাকরণে আগ্রহী, জানা গেছে সমীক্ষার রিপোর্টে। তাঁদের মধ্যে আবার বেশিরভাগই চাইছেন বাচ্চারা ইঞ্জেকশন ছাড়া ভ্যাকসিন পাক।

বাবা-মায়েরা নিজেরা ভ্যাকসিন নেওয়ার পর সন্তানের ভ্যাকসিনেও যে আগ্রহী হচ্ছেন তাতে দেশের টিকাকরণের গতি অনেক বাড়বে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

কোভিড-১৯ মোকাবিলায় ভ্যাকসিনের ব্যাপারে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং। তাঁর সিদ্ধান্ত, রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের ভ্যাকসিনের টিকা নেওয়া বাধ্যতামূলক, আবশ্যিক। স্বাস্থ্যের কারণ বাদে অন্য যে কোনও কারণই হোক, যে কর্মীরা একটিও ভ্যাকসিন নেননি,  তাঁদের ১৫ সেপ্টেম্বরের পর থেকে বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠিয়ে  দেওয়া হবে। গত শুক্রবার প্রশাসনিক  কর্তাদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,  তথ্য-পরিসংখ্যান থেকেই ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা স্পষ্ট হয়েছে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More