‘পরিবার বাঁচাও ওয়ার্কিং কমিটি’, কংগ্রেসকে বিদ্রুপ বিজেপির

2

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পরিবারতন্ত্রের খোঁচা দিয়েই কংগ্রেসকে (Congress) বিদ্ধ করতে চাইল বিজেপি (BJP)।

কপিল সিব্বলদের দুসরা ঠেকাতে শনিবার কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকের শুরুতেই পিচে যেন জিল ছিটিয়ে দিতে চেয়েছিলেন সনিয়া গান্ধী। সিডব্লিউসি বৈঠকের প্রারম্ভিক ভাষণেই বলেছিলেন, আমিই ফুলটাইম প্রেসিডেন্ট। এরপর দিনভর অনেক কিছু হয়েছে। কংগ্রেস সিদ্ধান্ত নিয়েছে আগামী বছর সেপ্টেম্বরে দলের সভাপতি নির্বাচন হবে। রাহুল গান্ধীও নাকি অশোক গেহলটের প্রস্তাবে ঘাড় নেড়ে বলেছেন, সভাপতি হওয়ার কথা তিনি ভেবে দেখবেন। এর মধ্যেই সিডব্লিউসি-কে পরিবার বাঁচাও ওয়ার্কিং কমিটি বলে বিদ্রুপ করল বিজেপি।

এদিন সাংবাদিক সম্মেলন করে বিজেপি মুখপাত্র গৌরব ভাটিয়া বলেন, “ওই যে বৈঠক হচ্ছে, ওটা পরিবার বাঁচাও ওয়ার্কিং কমিটি। ওখানে একটা পরিবারকে কী ভাবে বাঁচানো যায় সেসব নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। কংগ্রেসকে মানুষ চিনে গিয়েছে।”

গৌরব আরও বলেন, “কংগ্রেস অন্য সময় কৃষকদের জন্য কুমিরের কান্না কাঁদে। কই, কংগ্রেস শাসিত পাঞ্জাব আর রাজস্থানে যে নিরিহ কৃষকদের উপর পুলিশ নির্মম ভাবে লাঠি চালাল, তার বেলা?” সিঙ্ঘু সীমান্তে দলিত হত্যা নিয়েও সরব হন গৌরব। বিজেপি মুখপাত্রের কথায়, “কংগ্রেস আসলে মূল ইস্যুগুলি থেকে নজর ঘুরিয়ে দিতে চাইছে।”

গত প্রায় সওয়া এক বছর ধরে কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্বের মধ্যে কামান দাগাদাগি চলছে। একদিকে দশ জনপথ ও গুটি কয়েক নেতা অন্য দিকে কপিল সিব্বল-সহ ২৩ জন পোড় খাওয়া নেতা। যাদের জি-২৩ বলা হচ্ছে। সনিয়ার বিরুদ্ধে যে নেতারা কার্যত বিদ্রোহ ঘোষণা করেছেন। গান্ধী পরিবারের বিরুদ্ধে ওয়ার্কিং কমিটির একটা বড় অংশের বিদ্রোহ সাম্প্রতিক অতীতে দেখা যায়নি।

এদিন গৌরব বলেছেন, কংগ্রেস নিজেদের পার্টিই সামলাতে পারছে না। দলকে একটি পরিবারের দখলমুক্ত করতে যখন একাধিক নেতা বিবৃতি দিচ্ছেন তখনও সভাপতি পদত্যাগ করছেন না। যারা পার্টি সামলাতে পারে না তারা আবার দেশ চালাবে!”

ভ্যাকসিন নিয়েও সিডব্লিউসি বৈঠকের উদ্দেশে টিপ্পনি ছুড়ে দিয়েছেন গৌরব ভাটিয়া। তিনি বলেন, “নরেন্দ্র মোদী সরকারের ভ্যাকসিন নীতি নিয়ে কংগ্রেস অনেক লম্বা-চওড়া কথা বলেছিল। এখন কী হল। সিডব্লিউসি বৈঠক হচ্ছে মুখোমুখি বসে। তার মানে সবাই জোড়া ডোজের ভ্যাকসিন পেয়েছেন!”

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.