বিজেপিকে একজন কুক্ষিগত করছে, হতে দেব না: বিস্ফোরক শান্তনু

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বঙ্গ বিজেপির ভিতরে যে আরও একটা বিজেপি তৈরি হয়ে গিয়েছে তা অনেক দিন ধরেই মালুম হচ্ছিল। শনিবার তা প্রকাশ্যে চলে এল। একদিকে পোর্ট ট্রাস্টের গেস্ট হাউসে বৈঠক করলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শান্তনু ঠাকুর, জয়প্রকাশ মজুমদারের মতো নেতারা। অন্যদিকে সেই বৈঠকের সময়েই বিজেপি দফতরে সাংবাদিক বৈঠক করে দলের মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য বললেন, ওটা অফিশিয়াল পার্টি মিটিং নয়। পোর্টের গেস্ট হাউসের বাইরে পোস্টার ঝুলতেও দেখা গেল। তাতে লেখা, তৃণমূলের এজেন্ট পচা বিজেপি নেতারা সাবধান। বিজেপিকে শেষ করে নিজেদের গোছানোর উদ্যোগ চলবে না।

আর পোর্টের গেস্ট হাউসের বৈঠক শেষে বনগাঁর সাংসদ যা বললেন তা রীতিমতো বিস্ফোরক। কী বললেন শান্তনু?

তাঁর কথায়, বঙ্গ বিজেপিকে একজন ব্যক্তি কুক্ষিগত করার চেষ্টা করছেন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী আরও বলেন, এ ভাবে কমিটি গঠনে ৯০ শতাংশ বদল মানা যায় না। নতুন যাঁরা এসেছেন তাঁদের বিরুদ্ধে আমাদের আপত্তি নেই। কিন্তু কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে ভুল বুঝিয়ে এটা করানো হয়েছে। একজন সংগঠনের দখল নেবেন বলে।

এখন প্রশ্ন, এই একজন কে? কার বিরুদ্ধে এই ক্ষোভের জ্বালামুখ খুলে দিলেন ঠাকুর বাড়ির ছেলে?

শান্তনু নাম নেননি। তাঁর কথায়, এই লড়াই দিলীপ ঘোষ, শুভেন্দু অধিকারী সবাই তাঁদের সঙ্গে রয়েছেন। শান্তনু বলেন, আমরা চাই না বিজেপি বাংলায় শেষ হয়ে যাক। আমরা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হাত শক্ত করতে চাই।

তাহলে ওই একজন কে?

অনেকের মতে, নতুন সংগঠন সাধারণ সম্পাদক অমিতাভ চক্রবর্তীর বিরুদ্ধেই শান্তনুদের ক্ষোভ। যদিও নাম নিয়ে প্রকাশ্যে কোনও মন্তব্য করেননি বনগাঁর সাংসদ। নাম না করে তাঁর অপসারণও দাবি করেছেন শান্তনু।

হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ ছাড়া, নতুন কমিটি নিয়ে বিজেপির মধ্যে অসন্তোষ এসব কিছুই আর চাপা নেই। মতুয়া বিধায়কদের বিদ্রোহ, বাঁকুড়ার বিধায়কদের ক্ষোভ, শান্তনুর অসন্তোষ—এসবই এখন বহুল চর্চিত। কিন্তু এমন আলাদা করে বৈঠক করে সাংবাদিক সম্মেলন—নজিরবিহীন।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.