অসম-মিজোরাম সীমান্তে অশান্তি, গুলি, সরকারি গাড়িতে আগুন

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো : উত্তর-পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলির সীমানা নির্ধারণ নিয়ে বিতর্ক চলছে দীর্ঘদিন ধরে। বিতর্ক মেটানোর জন্য গত সপ্তাহের শেষে মেঘালয়ে গিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। কিন্তু সোমবারই জানা গেল, ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে অসম-মিজোরাম সীমান্ত। সেখানে গুলিবিনিময় ও সরকারি গাড়িতে আগুন লাগানোরও খবর পাওয়া গিয়েছে। অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা ও মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা এই অশান্তির জন্য পরস্পরকে দোষারোপ করেছেন।

জোরামথাঙ্গা অশান্তির ছবি টুইট করে বলেন, “অমিত শাহ অবিলম্বে এ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করুন। এই হিংসা অবিলম্বে বন্ধ হওয়া উচিত”। অপর একটি টুইটে তিনি লেখেন, “নিরীহ মানুষজন কাছাড় হয়ে মিজোরামে ফেরার পথে গুন্ডাদের হাতে আক্রান্ত হচ্ছেন। এই হিংসাকে কীভাবে ন্যায়সঙ্গত বলা যায়?”

হিমন্ত বিশ্বশর্মা টুইট করে বলেন, “জোরামথাঙ্গাজি, মিজোরামের কোলাসিবের পুলিশ সুপার বলছেন, আমরা যেন নিজেদের পোস্ট থেকে সরে যাই। না হলে হিংসা থামবে না।” অসমের মুখ্যমন্ত্রীর প্রশ্ন, “এই পরিস্থিতিতে কীভাবে সরকার চালানো যেতে পারে? আশা করি, আপনি দ্রুত হস্তক্ষেপ করবেন।”

গত শনিবার মেঘালয়ের রাজধানী শিলং-এ যান অমিত শাহ। এপ্রিল-মে মাসে অসমে নির্বাচনের পরে এই প্রথমবার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে গেলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি সেখানে ছিলেন দু’দিন। তার মধ্যে উত্তর-পূর্বের আট রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, মুখ্যসচিব ও পুলিশ প্রধানদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন। রুদ্ধদ্বার ওই বৈঠকে আন্তঃরাজ্য সীমান্ত নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে পর্যবেক্ষকদের ধারণা।

যে আটটি রাজ্যের প্রতিনিধিদের সঙ্গে অমিত শাহ বৈঠক করেছেন, তাদের মধ্যে আছে অসম, মেঘালয়, ত্রিপুরা, নাগাল্যান্ড, মিজোরাম, অরুণাচল প্রদেশ এবং সিকিম। এই রাজ্যগুলির সীমানা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। চলতি মাসের শুরুতেই বনভূমি নিয়ে অসম ও মিজোরামের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছিল।

একইসঙ্গে উত্তর-পূর্ব ভারতে কোভিড সংক্রমণ বৃদ্ধি নিয়ে আলোচনা করেন অমিত। ওই অঞ্চলের কয়েক ডজন জেলায় এখন কোভিড পরিস্থিতি গুরুতর আকার ধারণ করেছে। পজিটিভিটি রেট দাঁড়িয়েছে প্রায় ১০ শতাংশ। উত্তর-পূর্ব ভারতের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়েও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলোচনা করেছেন বলে জানা যাচ্ছে।

শনিবার উত্তর-পূর্ব ভারতের আট রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে নিয়ে অমিত যান নর্থ ইস্টার্ন স্পেস অ্যাপ্লিকেশনস সেন্টারে। সেখানে মহাকাশ বিজ্ঞানী ও প্রযুক্তিবিদরা কেমন কাজ করছেন খতিয়ে দেখেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন উত্তর-পূর্ব ভারতের উন্নয়ন সংক্রান্ত দফতরের মন্ত্রী জি কিষাণ রেড্ডি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী জিতেন্দ্র সিং এবং ইসরোর চেয়ারম্যান কি শিবন। রবিবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শিলং-এর অদূরে মাওইয়ং-এ আন্তঃরাজ্য বাস টার্মিনাসের উদ্বোধন করেন।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.