মানবতাই আসল ধর্ম, আবারও জানালেন শ্রীলেখা, ‘মাইরিলিজিয়নঅফলাভ’ লিখে শেয়ার করলেন পোস্ট

1

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ‘জীবে প্রেম করে যেই জন সেই জন সেবিছে ঈশ্বর!’

মানুষের মধ্যেই ঈশ্বরের বাস, তাঁকে যে নামেই ডাকা হোক না কেন! মানুষের আসল ধর্মই ভালবাসা সে কথা মহাজনেরা বারবার তাঁদের পদে, লেখনীতে, গানে বলে গিয়েছেন। ভালবাসার থেকে পবিত্র যে কিছু হয় না, সেখানে মানুষের তৈরি করা ধর্মীয় ভেদাভেদ যে বেড়াজাল হতে পারে না, সেকথাও বলেছেন সকলেই। জীবে প্রেম করার বাণী মানুষের মধ্যে প্রচার করতে চেয়েছেন।

তবু দেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে ধর্মকে বারবারই হাতিয়ার করা হয়েছে। ইদানীং ধর্ম জুড়েছে ভালবাসার সঙ্গেও, যার ফলশ্রুতি হিসেবে ‘লাভ জিহাদ’-এর মতো শব্দের সঙ্গে কমবেশি সকলেই পরিচিত হয়ে গেছেন! অথচ সংবেদশীল যে কোনও মানুষই ধর্মের ওপরে রাখেন মানবতাকে, ভালবাসাকে– এই নিয়েই ফের সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের অবস্থান জানালেন অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র।

সম্প্রতি সাবিনা ইয়াসমিনের একটি পোস্ট তিনি শেয়ার করেন। ‘মাইরিলিজয়নওফলাভ’ ক্যাপশন দিয়ে তিনি শেয়ার করেন পোস্টটি। এখানে সাবিনা সমাজের সামনে কিছু প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছেন, আর সেই প্রশ্নগুলো শুধুমাত্র সাবিনার একার নয়! সেই প্রশ্নগুলো একই সঙ্গে এসেছে শ্রীলেখার মনেও!

সাবিনা লেখেন, প্রশ্ন তোলেন, মুসলমান ধর্মের হলেই কি তিনি উর্দু পড়বেন আর শুধুই গরু খাবেন? তাঁরা কি বাংলা বই পড়েন না, আর পাঁচ জন বাঙালির মতোই নয় কি তাঁদের জীবনটা? সাবিনার আক্ষেপ, এ দেশের সংখ্যাগুরু বহু মানুষই মুসলমানদের নিয়ে এমন আবছা ধারণা নিয়েই এত বছর একসঙ্গে কাটিয়ে দিলেন বা দিচ্ছেন। ভারতবর্ষের মূল স্রোতের সঙ্গে যে অল্প কয়েকজন মুসলিম মানুষ নিজেদের মেশাতে পারেননি, তাঁদের বরং গোটা সম্প্রদায়ের মুখ করে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ তাঁর। হিন্দু আর মুসলমানদের এই ফারাকগুলোকেই একটি বিশেষ রাজনৈতিক দল কাজে লাগাচ্ছে বলে মত প্রকাশ করেন তিনি।

এই কথাগুলোর সঙ্গেই সহমত পোষণ করেছেন শ্রীলেখা। তাই তিনি ধর্মকে ভালবাসার কথা বলে শেয়ার করেছেন এই পোস্ট। সাবিনা, শ্রীলেখার মতো হয়তো এই বিষয়ে একমত, তবে ভেদাভেদ পার করে মানব ধর্মকে এগিয়ে রাখার দিন আসবে কিনা, নে বিষয়ে সন্দীহান সকলেই।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.