মমতার যুক্তি খারিজ, আলাপনকে কাল দিল্লিতে রিপোর্ট করার নির্দেশ কেন্দ্রের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আপত্তি খারিজ করে মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে মঙ্গলবার দিল্লিতে রিপোর্ট করার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্র। সেই চিঠি নবান্নে পৌঁছনোর পর বিকেলে সাংবাদিক বৈঠক করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর বক্তব্য, এটা হল প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ। রাজ্য কোভিড পরিস্থিতির মোকাবিলা করছে। তার মধ্যে সর্বোচ্চ আমলাকে দিল্লিতে বদলি করার নির্দেশ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

মুখ্যমন্ত্রী এও বলেন, “আলাপনের চাকরির মেয়াদ আজ দুপুরেই শেষ হয়েছে। তার পর তাঁকে দিল্লিতে বদলি করা যায় না। কারণ, তাঁর চাকরির মেয়াদ যে তিন মাস বাড়ানো হয়েছে তা কেবলই মুখ্যসচিব হিসাবে। সুতরাং তাঁকে দিল্লিতে আর বদলি করা যায় না। কেন্দ্রের কোথাও বিভ্রান্তি হচ্ছে।”

আরও কী কী বলেন মুখ্যমন্ত্রী সাংবাদিক বৈঠকে, দেখে নিন।

  • কিছুক্ষণ আগে আমাদের কাছে চিঠি আসে ক্যাডার আইন উল্লেখ করে, বলা হয় আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে নর্থ ব্লকে যোগ দিতেই হবে।
  • এই চিঠিতে কোথাও লেখা নেই যে কী কারণে তার মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়েছিল। আমি ১০ মে যে চিঠি দিয়েছিলাম, সেখানে পরিষ্কার করে লিখেছিলাম তাঁর মেয়াদ বৃদ্ধি করার কারণ কী।
  • প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকের আগে কিন্তু আমাকে বলা হয়নি যে তাঁর সঙ্গে দুর্গত এলাকা পরিদর্শনের জন্য। শুধু দেখা করার কথা বলা হয়েছিল। সেইমতো আমি ও রাজ্যের মুখ্যসচিব তাঁর সঙ্গে দেখা করি।
  • আপনারা একক ভাবে কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারেন কি? সারা দেশে কখনও এমন ঘটনা ঘটেনি। দেশের অন্যতম প্রথম সারির একজন আমলার সঙ্গে এইসব করা যায় কি?
  • রুল বুকের ৬ (১) ধারা উল্লেখ করে তাঁকে তলব করা হল। রাজ্যের সঙ্গে কোনও আলোচনাই করা হল না। প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এই কাজ তো প্রতিহিংসাপরায়ণ।
  • কেন আলাপনকে দিল্লিতে ডাকা হল, সেই বিষয়ে নির্দিষ্ট কিছু বলা হয়নি।
  • আপনারা ভোটের পরেও বলেছিলেন শুধু হিংসা হচ্ছে রাজ্যে। আমি তো তেমন কোনও হিংসা দেখিনি। তা সত্ত্বেও আপনারা বিভিন্ন এজেন্সিকে রাজ্যে পাঠিয়েছেন।
  • ওরা রাজ্য সরকারকে বুলডোজ করতে চাইছে।
  • মনে রাখবেন, রাজ্যের টপমোস্ট আমলাকে এইভাবে তাঁর কনসেন্ট ছাড়া ডেকে নেওয়া যায় না। তাঁকে এইভাবে হিউমিলিয়েট করা ঠিক হচ্ছে কি? আমলারা আপনাদের ক্রীতদাস নয়।
  • এইভাবে আপনারা আমাকে শেষ করতে পারবেন না মিস্টার প্রাইম মিনিস্টার।
  • এই লড়াইটা শুধু আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের নয়। এটা সারা দেশের সব আমলার লড়াই। দু’জনের একটা সিন্ডিকেট, যা ইচ্ছা তাই সিদ্ধান্ত নেবে ?
  • আজকেই অবসর নিচ্ছেন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর ইচ্ছাকে আমি সম্মান জানাচ্ছি।
    তবে আলাপনের অবসরের পরেও আমরা তাঁর সাহায্য নেব।
  • আমি তাঁকে মুখ্যমন্ত্রীর মুখ্য উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ করছি। কাল থেকেই তিনি তাঁর কাজ শুরু করবেন।
  • রাজ্য সরকারের বিভিন্ন নীতি তৈরির ক্ষেত্রে তিনি আমাদের সাহায্য করবেন।
  • পরবর্তী মুখ্যসচিব হচ্ছেন এইচকে দ্বিবেদী। পরবর্তী স্বরাষ্ট্রসচিব হচ্ছেন বিপি গোপালিকা।
You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More