গলায় রেডিও কলার নিয়েই বাংলাদেশে ‘অনুপ্রবেশ’ করল সুন্দরবনের বাঘ, ৪ মাসে পেরলো ১০০ কিমি পথ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নামের আগে ‘দেশান্তরি’-র তকমা ঝুলছে। বৈধ কাগজপত্র ছাড়াই নাকি পড়শি রাষ্ট্রে পা রেখেছেন তিনি। এমনটাই ‘অভিযোগ’ সরকারি মহলে। দীর্ঘ ১০০ কিলোমিটার পথ। তাও অতিক্রম করেছেন পায়ে হেঁটে। চার মাসে। সুন্দরবনের ঘন ম্যানগ্রোভ অরণ্য পেরিয়ে এখন তিনি বাংলাদেশের দ্বীপে আস্তানা পেতেছেন। বাংলা থেকে ‘ফেরার’ একটি বাঘ, খাস রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের অন্তর্ধানকে ঘিরে সরগরম রাজ্যের বন বিভাগ।

আধিকারিক সূত্রে খবর, গত বছর ডিসেম্বর মাসে ওই বাঘের গলায় রেডিও কলার পরানো হয়। মূলত স্বাস্থ্যের দেখভাল, গতিবিধি এবং লোকালয়ে আসা-যাওয়ায় নজরদারি রাখতেই এই উদ্যোগ। রাজ্যের বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ বিভাগের শীর্ষ কর্তা ভিকে যাদব বলেন, ‘প্রথম কিছুদিন বাঘটি ভারতের সীমানাতেই ঘোরাফেরা করেছিল। এরপর তা হঠাৎ দিক পাল্টে বাংলাদেশের সুন্দরবন অংশে ঢুকে পড়ে। চলে যায় তালপাট্টি দ্বীপে। শুধু তাই নয়। ছোট হরিখালি, বড় হরিখালি, রায়মঙ্গলের মতো খরস্রোতা নদীও অক্লেশে সাঁতরে পার হয়।’

যদিও জল-স্থল মিলিয়ে এত জায়গা পেরনোর পরেও তরুণ শার্দুলটি গ্রামেগঞ্জে হানা দেয়নি। তাঁর অনুমান, আদতে ওই বাঘের জন্ম বাংলাদেশে। কোনওভাবে সুন্দরবনে চলে আসার পর বন দফতরের কর্মীরা তাকে আটক করেছিল। এতদিন পর পথ চিনে পায়ে পায়ে ফের নিজের জন্মভূমিতেই ফিরে গেছে সে।

মঙ্গলবার সকালে গোটা বৃত্তান্ত টুইট করেছেন ফরেস্ট সার্ভিসের অফিসার প্রবীণ কাসওয়ান। ডোরাকাটা, গলায় রেডিও কলার বাঁধা বাঘের একটি পুরোনো ছবি পোস্ট করে তিনি মজার ছলে লেখেন, ‘ভারত থেকে বাংলাদেশ। ১০০ কিমির পথ। যা এই বাঘটি ভিসা ছাড়াই অতিক্রম করেছে। পেরিয়েছে সমুদ্র, নদী এমনকী ছোটবড় খাঁড়িও।’

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যে বন দফতর সূত্রে বাঘের গতিবিধির কয়েকটি তথ্য সামনে এসেছে। যেমন, গত ২৭ ডিসেম্বর থেকে ১১ মে-র মধ্যে হরিণভাঙা, খাতুয়াঝুড়ি এবং তালপট্টি— মোট তিনটি দ্বীপে তার আনাগোনা ছিল। ১১ মে-র পর রেডিও কলারটি কোনওভাবে খুলে যায়। কারণ, তবে থেকে তার অবস্থানের কোনও হদিশ মেলেনি৷ পাশাপাশি ওই যন্ত্রে মর্টালিটি সেন্সরও লাগানো ছিল। বাঘটি কোনওভাবে মারা গেলে তক্ষুনি তার সংকেত পাওয়া যেত। সেটা যখন মেলেনি, আধিকারিকদের আশা, তালপাট্টি দ্বীপ কিংবা তার আশপাশের কোথাও আপাতত ডেরা বেঁধে দিব্যি দিন কাটাচ্ছেন ‘দ্য বিগ ক্যাট’।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More