কলকাতায় বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি আরও চার দিন, বর্ষার দাপট বাড়বে পাহাড়ে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বৃষ্টির তেজ কমছে কলকাতায়। গাঙ্গেয় বঙ্গে আরও তিন থেকে চারদিন বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানাচ্ছে, বৃষ্টির দাপট সমতলে কিছুটা কমবে, তবে পাহাড়ে বাড়বে। আগামী তিন থেকে চার দিন ভারী বৃষ্টি হতে পারে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে।

কলকাতায় আজ সকাল থেকে আকাশ আংশিক মেঘলা। কখনও হাল্কা রোদ উঁকিঝুঁকি মারছে। মঙ্গলবারও দিনভর ঝিরঝিরে বৃষ্টি হয়েছে। প্যাচপ্যাচে গরমভাবটা অতটা নেই। আজও দু’এক পশলা হাল্কা থেকে মাঝারি বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর হাওয়া অফিস। এদিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৬.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকালের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৯.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসে জলীয়বাষ্পের পরিমাণ এখনও বেশি ৯৭ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টি হয়েছে ০.৭ মিলিমিটার।

হাওয়া অফিস জানাচ্ছে, অন্যান্য বছর মরসুমের শুরু থেকেই দক্ষিণবঙ্গে শক্তিশালী নিম্নচাপ অক্ষরেখা দেখা যায় না। ফলে বর্ষার সক্রিয়তাও কম থাকে। ঘাটতি থাকে বৃষ্টিতেও। কিন্তু এবার গাঙ্গেয় বঙ্গের ওপরে একটি ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হয়েছে। বঙ্গোপসাগর থেকে প্রচুর পরিমাণে জলীয় বাষ্প ঢুকছে। এর জেরেই বৃষ্টির এমন দাপট দেখা যাচ্ছে।

আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, মরসুমের শুরু থেকেই বর্ষার এই অতি-সক্রিয়তার পিছনে দায়ী উত্তর-পশ্চিম ভারত থেকে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের উপর দিয়ে বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত একটি শক্তিশালী নিম্নচাপ অক্ষরেখা। সেটি মৌসুমী বায়ুর সঙ্গে আসা জলীয় বাষ্পকে নিজের দিকে টেনে নিচ্ছে। এবং বৃষ্টি নামাচ্ছে দক্ষিণবঙ্গে। এই নিম্নচাপ অক্ষরেখার প্রভাব পড়ছে উত্তরবঙ্গেও। আবহবিদরা বলছেন, রাজস্থান থেকে বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে এই নিম্নচাপ অক্ষরেখা যেটি ঝাড়খণ্ড ও গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের উপর দিয়ে গেছে। এর জেরে আগামীদিনও প্রচুর জলীয়বাষ্প ঢুকবে রাজ্যে।

আজ বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টির পূর্বাভাস উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, পশ্চিম বর্ধমান ও বীরভূমে। আগামীকাল শুক্রবার বৃষ্টি হবে উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুরে। শনিবার হাল্কা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হবে কলকাতা, দুই পরগনা, মুর্শিদাবাদ ও নদিয়াতে।

উত্তরবঙ্গ আজভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দার্জিলিং, কালিম্পংয়ে।  বৃহস্পতিবার থেকে বৃষ্টি বাড়বে উত্তরবঙ্গে। বজ্রবিদ্যুৎ সহ ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দার্জিলিং, কালিম্পং, জলপাইগুড়ি কোচবিহার ও আলিপুরদুয়ারে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More