জাল নোট চক্রের চাঁইকে বর্ধমান থেকে গ্রেফতার করল এনআইএ

দ্য ওয়াল ব্যুরো, পূর্ব বর্ধমান: জাল নোট চক্রের এক চাঁইকে গ্রেফতার করল জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ। ধৃতের নাম জাকির শেখ। পূর্ববর্ধমানের খণ্ডঘোষ থানার বেড়ুগ্রামে ধৃতের বাড়ি। রবিবার রাতে বাড়ি থেকে এনআইএ তাকে গ্রেফতার করে। ধৃতের দু’টি মোবাইল ফোন বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ও নেপাল থেকে জাল নোট এনে দেশের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে দিচ্ছে একটি চক্র। চক্রের ৪ জনকে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার করা হয়েছে। বাংলাদেশ ও নেপালের কয়েকজন জাল নোটের এই কারবারে জড়িত বলে জেনেছে এনআইএ। তাদের ধরতে দু’দেশের সরকারের সঙ্গে আলোচনা চলছে বলে জানিয়েছেন এনআইএ-র এক আধিকারিক। জাকির এর আগেও জাল নোট সহ ধরা পড়েছে। কলকাতায় কাস্টমসের গোয়েন্দাদের হাতে ধরা পড়েছিল সে।

পূর্ব বর্ধমান ও আশপাশের জেলায় জাকির জাল নোট ছড়িয়েছে বলে এনআইএ-র গোয়েন্দাদের দাবি। সোমবার ধৃতকে বর্ধমান আদালতে পেশ করা হয়। তাকে শিলিগুড়িতে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চায় এনআইএ। সেজন্য ৩ দিন ট্রানজিট রিমাণ্ডের আবেদন জানায় এনআইএ। সেই আবেদন মঞ্জুর করেছেন সিজেএম সুজিত কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়। পয়লা এপ্রিলের মধ্যে ধৃতকে শিলিগুড়ির এনআইএ আদালতে পেশ করে এ ব্যাপারে রিপোর্ট পেশ করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন সিজেএম।

২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি শিলিগুড়ির বাগডোগরার বিহার মোড় বাসস্টপ থেকে জাল নোট সহ মালদহের জগদীশপুরের বাসিন্দা গোলাম মোর্তুজা ওরফে সাজাতুর রহমানকে গ্রেফতার করেন রেভিনিউ ইন্টেলিজেন্সের গোয়েন্দারা। ধৃতের কাছ থেকে ৪ লক্ষ ১ হাজার টাকা উদ্ধার হয়। তার মধ্যে ২০০টি ২ হাজার টাকার এবং ২টি ৫০০ টাকার নোট ছিল। কাস্টমস এ নিয়ে একটি মামলা রুজু করে। পরে ৯ মার্চ ঘটনার গুরুত্ব বুঝে স্বরাষ্ট্র দফতর মামলার তদন্তভার এনআইএ-র হাতে তুলে দেয়। তদন্তে নেমে এনআইএ মহম্মদ বাইতুল্লাহ, মহম্মদ মুকতার আলম ও সাদেক মিঞাকে গ্রেফতার করে।

তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে এনআইএ গোয়েন্দারা জানতে পারেন, চক্রটি জাল নোট পাচার ও নানা ধরণের স্মাগলিংয়ে জড়িত। এছাড়াও সন্ত্রাসবাদী কাজকর্মেও ধৃতরা জড়িত। বাংলাদেশ থেকে জাল নোট এনে দেশের বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে দিয়েছে গ্যাংটি। অত্যন্ত উন্নত মানের জাল নোট তৈরি করে চক্রটি। সাদা চোখে যা ধরা কার্যত অসম্ভব। তদন্ত সম্পূর্ণ করে ৪ জনের বিরুদ্ধে জাল নোটের কারবারের পাশাপাশি আন ল’ফুল অ্যাক্টিভিটিস প্রিভেনশন অ্যাক্টের ১৬, ১৮ ও ২০ ধারায় সাপ্লিমেন্টারি চার্জশিট পেশ করেছে এনআইএ। এনআইএ-র এক আধিকারিক বলেন, “গ্যাংটি বাংলাদেশ ও নেপাল থেকে অপারেট করে। জাল নোট ছড়িয়ে দেশের অর্থনীতিকে ভেঙে ফেলার চক্রান্তে জড়িত ধৃতরা। আরও কয়েকজন এই চক্রের সঙ্গে জড়িত। তাদের মধ্যে বাংলাদেশ ও নেপালেরও কয়েকজন রয়েছে। তাদের ধরার প্রক্রিয়া চলছে।”

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More