তৃণমূলকে ঘিরে ধরল ১০ হাজার ৩২৩, ত্রিপুরার রাস্তায় কী করলেন কুণালরা

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তৃণমূলের (tmc) মিছিল ঘিরে ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলা শহরে হইহই কাণ্ড বেঁধে গেল শনিবার দুপুরে। এদিন আগরতলা শহরে বেশ বড় মিছিল করে তৃণমূল। বিপ্লব দেবের বিধানসভা কেন্দ্র বনমালীপুর থেকে মিছিল শুরু হয়ে শহরের বিভিন্ন রাস্তা ঘুরে ফের বনমালীপুরেই শেষ হয়। মিছিলের নেতৃত্বে ছিলেন রাজ্যসভার সাংসদ শান্তনু সেন এবং কুণাল ঘোষ।

চাকরিচ্যুত ১০ হাজার ৩২৩ শিক্ষক দীর্ঘদিন ধরেই আগরতলায় অবস্থান বিক্ষোভ চালাচ্ছেন। আরএমএস চৌমুহনীতে চলছে শিক্ষকদের অবস্থান। তৃণমূলের মিছিল সেখানে পৌঁছনো মাত্রই চাকরিচ্যুত শিক্ষকরা ঘিরে ধরেন তৃণমূল নেতাদের। কুণালকে ঘিরে এক শিক্ষককে বলতে শোনা যায়, “সিপিএম আমাদের দেখেনি। বিজেপি প্রতারণা করেছে। তৃণমূল এসেও যদি তা করে……।” এর মধ্যেই কুণালকে বলতে শোনা যায়, আমরা তো আপনাদের কিছু বলিনি…।

আরও পড়ুনঃ মহীশূর গণধর্ষণ কাণ্ডে পাঁচ জনকে গ্রেফতার করল পুলিশ, রয়েছে নাবালকও

শিক্ষকদের ওই অবস্থানের সামনে কার্যত হইচই বেঁধে যায়। থমকে যায় তৃণমূলের মিছিল। তারপর ফের শুরু হয় হাঁটা। মাইকে তখন স্লোগান চলছে, শিক্ষামন্ত্রী দূর হঠো। ত্রিপুরার শিক্ষামন্ত্রী রতনলাল নাথের বিরুদ্ধে স্লোগান দিচ্ছিলেন শিক্ষকরা।

সিপিএম জমানায় প্রাথমিক স্কুলে শিক্ষক পদে নিয়োগ হয়েছিল ১০ হাজার ৩২৩ জন শিক্ষকের। পরে একটি মামলার রায়ে সুপ্রিম কোর্ট সেই নিয়োগকে অবৈধ বলে। বিজেপি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, তাঁরা সরকারে এলে এঁদের আইন মেনে নিয়োগপত্র দেবেন। কিন্তু পৌনে চার বছর কেটে গেলেও তা না হওয়ায় ফের আন্দোলনে শুরু করে ১০ হাজার ৩২৩। কয়েক মাস আগে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের সরকারি বাসভবন ঘেরাও অভিযানে ব্যাপক তোলপাড় হয়েছিল আগরতলায়।এদিন তৃণমূলকে ঘিরে নিজেদের দাবি জানালেন চাকরিচ্যুত শিক্ষকরা।

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকা ‘সুখপাঠ’

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.