ভোট নিয়ে প্রিয়াঙ্কার প্রস্তুতি বৈঠকে লড়াইয়ের শপথ যোগী রাজ্যের কংগ্রেস নেতাদের

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আগামী বছরের গোড়াতেই উত্তরপ্রদেশ-সহ পাঁচ রাজ্যের ভোট। ইতিমধ্যেই দেশের সবচেয়ে বড় রাজ্যের কুর্সি ধরে রাখতে মহড়া শুরু করে দিয়েছে বিজেপি। পাঁচ রাজ্যের ভোট নিয়ে কেন্দ্রীয় বিজেপি একটি বৈঠক করেছে। উত্তরপ্রদেশ নিয়ে পৃথক বৈঠকে উপস্থিতি ছিলেন স্বয়ং নরেন্দ্র মোদী। এবার কংগ্রেসও যেন গা ঝাড়া দিয়ে নামতে চাইছে।

সোমবার উত্তরপ্রদেশের কংগ্রেস নেতাদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক করেন সর্বভারতীয় কংগ্রেসের অন্যতম সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢড়া। সূত্রের খবর, সেই বৈঠকেই প্রদেশ কংগ্রেস নেতারা প্রিয়ঙ্কার সামনে শপথ নিয়েছেন, মূল্যবৃদ্ধি, বেকারত্ব, কৃষিপণ্যের দাম বৃদ্ধির মতো আমজনতার রোজনামচার জ্বলন্ত সমস্যাগুলিকে নিয়ে রাস্তায় আন্দোলনে নামবে দল।

প্রিয়ঙ্কা কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পূর্ব উত্তরপ্রদেশের দায়িত্বে রয়েছেনহ কয়েক বছর হল। কিন্তু তাঁর নড়াচড়া নিয়ে সমালোচনা রয়েছে। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের অনেকের মতে, যোগী আদিত্যনাথের শাসনে উত্তরপ্রদেশে এত ইস্যু পেয়েছে বিরোধীরা কিন্তু কাজেই লাগাতে পারেনি। মাঠে-ময়দানে দুর্বার আন্দোলনের বদলে তা শুধু টুইটার, ফেসবুকের বিবৃতিতেই সীমাবদ্ধ ছিল। সরকারকে নাস্তানাবুদ করে দেওয়ার মতো যে নাছোড়বান্দা বিরোধিতা প্রয়োজন ছিল তা হয়নি বলেই মত তাঁদের।

পর্যবেক্ষকদের এও বক্তব্য, কংগ্রেস এমনিতে সারা বছরের সাংগঠনিক দল নয়। ভোটের আগেই তাঁদের সাংগঠনিক ঘষামাজা শুরু হয়। কিন্তু তাতেও আরও আগে ময়দানে নামলে বিরোধী পরিসরে দাগ কাটার সুযোগ ছিল বলে মনে করেন অনেকে।

এদিন প্রিয়ঙ্কার ডাকা ভার্চুয়াল বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন উত্তরপ্রদেশের কংগ্রেস সভাপতি অজয় কুমার লাল্লু, বর্ষীয়ান নেতা সলমন খুরশিদ-সহ সিডব্লিউসি-র একাধিক নেতা।
কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করে ভোটে যাওয়ার ব্যাপারে মায়াবতীর বহুজন সমাজ পার্টি অনেক আগেই না করে দিয়েছিল। গত সপ্তাহে সমাজবাদী পার্টির প্রধান অখিলেশ যাদবও যা ইঙ্গিত দিয়েছেন তাতে স্পষ্ট, তাঁর দল একাই লড়বে ভোটে। জোট প্রসঙ্গে সংবাদসংস্থা পিটিআইকে উত্তরপ্রদেশের কংগ্রেস সভাপতি লাল্লু বলেছেন, “কোনও জোটের প্রয়োজন নেই। জঙ্গলরাজের বিরুদ্ধে তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলে কংগ্রেস একাই সরকার গঠন করতে পারবে।”

কয়েকদিন আগেই ছত্তীসগড়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেশ বাঘেলের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন প্রিয়ঙ্কা। অনেকের মতে, উত্তরপ্রদেশের নির্বাচনী সংগঠন গোছানোর জন্য তাঁকেই দায়িত্ব দিতে চলেছে কংগ্রেস।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.