তৃণমূলের উপস্থিতিতে গোয়ায় রাজনৈতিক মাত্রা পেয়েছে দুর্গাপুজো

দ্য ওয়াল ব্যুরো : কয়েকমাস পরেই বিধানসভা ভোট হবে গোয়ায় (Goa)। এর মধ্যে বাংলার সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপুজো তথা দেবী দুর্গার কথা শোনা যাচ্ছে সেখানকার একশ্রেণির রাজনীতিকের মুখে। মূলত যাঁদের পিঠ দেওয়ালে ঠেকে গিয়েছে, তাঁরাই দেবী দুর্গার শরণ নিচ্ছেন। গোয়ার রাজনীতিতে সদ্য পা রেখেছে তৃণমূল। এই পরিস্থিতিতে দেবী দুর্গা হয়ে উঠেছেন রাজনীতির প্রতীক।

গোয়া ফরওয়ার্ড পার্টির সভাপতি বিজয় সরদেশাই কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ভোট এগিয়ে এলেও কংগ্রেস তাঁকে জানায়নি জোট করবে কিনা। তিনি দেবী দুর্গার পুজো দিয়ে বলেছেন, “গোয়ায় নতুন সূর্যোদয় হচ্ছে”। সরদেশাইয়ের কথায়, “আমরা দেবী দুর্গাকে জাগিয়ে তুলেছি। নবরাত্রিতে আমরা দুর্গাপুজো করি। আমাদের রাজ্যে নতুন ভোর আসছে”। তৃণমূলও গোয়ায় নতুন স্লোগান দিয়েছে, ‘গোয়েঞ্চি নভি সকাল’, অর্থাৎ গোয়ায় নতুন সকাল। সরদেশাই পরোক্ষে তৃণমূলের ওই স্লোগানের কথা উল্লেখ করেছেন। গত দুই সপ্তাহে গোয়ায় তৃণমূলের কয়েকশ পোস্টার ও ব্যানার লাগানো হয়েছে। তাতে রয়েছে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি। সেই সঙ্গে লেখা, ‘গোয়েঞ্চি নভি সকাল’।

সরদেশাইয়ের দল ২০১৭ সালের ভোটে তিনটি বিধানসভা আসনে জয়লাভ করেছিল। ভোটের আগে তাঁরা ছিলেন কট্টর বিজেপি বিরোধী। কিন্তু ভোটের পরে বিজেপির সঙ্গে জোট করেন। ভুতপূর্ব মুখ্যমন্ত্রী মনোহর পরিকরের আমলে সরদেশাই ছিলেন মন্ত্রী। পরিকরের মৃত্যুর পরে মুখ্যমন্ত্রী হন প্রমোদ সাওয়ান্ত। তাঁর আমলে সরদেশাইকে মন্ত্রিসভা থেকে বরখাস্ত করা হয়। এরপরে গোয়া ফরওয়ার্ড পার্টির শক্তি কমে আসে। এবছর এখনও কংগ্রেস তাদের সঙ্গে জোটের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি।

সরদেশাইয়ের দাবি, কংগ্রেস দু’মুখো নীতি নিয়ে চলছে। কংগ্রেস নেতারা গোপনে তাঁদের বলছেন, জোট করবেন। এদিকে প্রকাশ্যে বিবৃতি দিচ্ছেন, তাঁরা সবক’টি আসনে এককভাবে লড়বেন।

সরদেশাই বলেন, তাঁর সঙ্গে ইন্ডিয়ান পলিটিক্যাল অ্যাকশন কমিটির কর্তা প্রশান্ত কিশোরের কথা হয়েছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপদেষ্টা প্রশান্ত কিশোর তাঁকে কী বলেছেন, জানাতে চাননি সরদেশাই। তিনি বলেন, “এখন ভোটের মরসুম। সকলেই অন্যান্য দলের সঙ্গে কথা বলছে। আমি প্রশান্ত কিশোরের সঙ্গেও কথা বলেছি।”

গত সেপ্টেম্বরে কলকাতায় এসে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন গোয়ার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লুইজিনহো ফেলারিও এবং প্রদেশ কংগ্রেসের শীর্ষস্থানীয় ১০ জন নেতা। লুইজিনহো জানান, ভোটের আর তিনমাস বাকি। কোনও নতুন পার্টির পক্ষে এটা খুবই কম সময়। কিন্তু তার মধ্যেই তৃণমূলের জয় সম্ভব। বিজেপির শাসনে গোয়ার মানুষ বীতশ্রদ্ধ। দিদিই তাঁদের কাছে বিকল্প হয়ে উঠতে পারেন।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More