করোনা কালে বেকার কর্মীদের ঘরে বসিয়েই বেতন দিয়ে চলেছে নেইমারের সংস্থা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: করোনা কালে লিওনেল মেসির মানবিক মুখ দেখেছে বিশ্ব। তিনি চিনের করোনা টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করেছে লাতিন আমেরিকার সমস্ত ফুটবলারদের।
কোভিড পরিস্থিতির মধ্যে মহত্ব দেখাচ্ছেন ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার নেইমারও। তাঁর দেশ ব্রাজিলে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ভয়াবহ আকার নিয়েছে। প্রায় চার লক্ষ মানুষের প্রাণ গিয়েছে এই মারণ ভাইরাসের প্রভাবে। সংক্রমণ ও মৃত্যুর প্রভাবে দেশের অর্থনৈতিক কাঠামো প্রবল ধাক্কা খেয়েছে।
দেশের এই সঙ্কটজনক অবস্থায় নিজ নিজ অবস্থান থেকে এগিয়ে এসেছেন বিশ্ব ফুটবলের সফলতম দেশটির কৃতি ফুটবলাররা। যাদের মধ্যে অন্যতম নেইমার জুনিয়র। যিনি গত এক বছর ধরে কোনও কাজ না করিয়েই, নিজ প্রতিষ্ঠানের ১৪২ জন কর্মীকে পূর্ণ বেতন দিচ্ছেন।

অসহায় ও দুঃস্থ শিশুদের দেখভালের জন্য নেইমার জুনিয়র ইন্সটিটিউট প্রতিষ্ঠা করেছেন এই নামী ব্রাজিলীয় ফুটবলার। যেটি ব্রাজিলের রিওর উপকন্ঠে প্রেইয়া গ্রান্দে অঞ্চলে প্রায় ৩ হাজার শিশুর দেখভাল করে থাকে। কিন্তু করোনার কারণে গতবছরের মার্চ থেকে এখনও পর্যন্ত বন্ধ রয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।
কাজ হচ্ছে না, ঘরে বসেই রয়েছে ওই প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা। কার্যত বেকার কর্মীদের করোনা কালেও বেতন পুরোটাই দিয়ে চলেছেন নেইমার। বেতন কেটে নেওয়ার কথাও বলেননি তিনি। গত একবছর ধরে প্রতি মাসে কর্মীদের বেতন দিতে খরচ হচ্ছে প্রায় ৯০ লক্ষ টাকা।
এই প্রতিষ্ঠানের যিনি ডিরেক্টর তিনি নেইমারের বাবা সিনিয়র নেইমার। তিনি ও গ্লোবো পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, ‘‘আমি এবং আমার পরিবার পুরো বিষয়টি সামাল দিচ্ছি। এখানের ১৪২ জন কর্মীর সবাই তাদের বেতন এবং অন্যান্য সুবিধে যেরকম পাওয়ার পাচ্ছে। কারোর কোনও সমস্যা হচ্ছে না।’’
বিখ্যাত পুত্রের বাবার আরও মন্তব্য, ‘‘আমরা নিজেদের অর্থ-সম্পদ থেকে এর ব্যবস্থা করেছি। এই প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের এসব নিয়ে চিন্তা করতে হবে না। এটা আমরা দেখছি। যত দিন এই মহামারী চলবে, ততদিনই আমরা কর্মীদের পরিবারের পাশে থাকব, এটা আমাদের অঙ্গীকার।’’

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More