ছত্রধর মাহাতোকে হেফাজতে নিতে চায় এনআইএ, প্রবীর মাহাতো খুন ও রাজধানী এক্সপ্রেস হাইজ্যাকে অভিযুক্ত নেতা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: প্রবীর মাহাতো খুনের ঘটনা ও রাজধানী এক্সপ্রেস হাইজ্যাকের ঘটনায় ছত্রধর মাহাতোকে হেফাজতে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চাইল এনআইএ। কিছুদিন আগে প্রধান বিচারপতির কাছে এই আর্জি নিয়ে মামলা করেছিল এনআইএ। আজ সেই মামলার শুনানিতে এনআইএ কোর্টের কাছে হলফনামা পেশ করার সময় চায়। আগামী ২০ জানুয়ারি ফের শুনানি হবে এই মামলার।

২০০৯ সালের সিপিএম নেতা প্রবীর মাহাতো খুন এবং রাজধানী এক্সপ্রেস পণবন্দি মামলায় যোগসাজশের অভিযোগ রয়েছে ছত্রধরের বিরুদ্ধে। আচমকাই লকডাউনের মধ্যে ৩০ মার্চ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক এই দু’টি মামলায় এনআইএ-কে ফের তদন্তের নির্দেশ দিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করে। এর পরে গত বছর অগস্ট মাসে কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে এই মামলার তদন্তে তৎপর হয়েছে এনআইএ।

গত বছর ফেব্রুয়ারি মাসে জেল থেকে ছাড়া পেয়ে তৃণমূলে যোগ দেন ছত্রধর মাহাতো। তার কয়েক মাস পরে এই মামলায় পরপর দু’দিন ছত্রধরকে ঝাড়গ্রামের শালবনিতে কোবরা ক্যাম্পে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল এনআইএ। এবার তাঁকে হেফাজতে নিতে আবেদন জানাল তারা।

২০০৯ সালের ১৪ জুন লালগড়ের ধরমপুর গ্রামে খুন হন সিপিআইএম নেতা প্রবীর মাহাতো। সেই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে তৎকালীন জনসাধারণের কমিটির নেতা ও বর্তমানে তৃণমূলের রাজ্য কমিটির সদস্য ছত্রধর জড়িত বলে অভিযোগ। এই মামলায় ২০০৯ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর সাংবাদিক ছদ্মবেশে পুলিশ ছত্রধর মাহাতোকে গ্রেফতার করে। তাঁর বিরুদ্ধে ইউএপিএ ধারায় মামলা রুজু করা হয়। ২০১২ সালের মে মাসে ছত্রধরকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। এর চার সপ্তাহের মধ্যেই আদালত ছত্রধর মাহাতোকে রাজনৈতিক বন্দির তকমা দেয়। এই মামলায় ৩৭ জন আসামী ছিলেন। এখন ২৭ জন জীবিত।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More