ভ্যাকসিন নেওয়ার পর কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন খুব কম সংখ্যক মানুষ, তথ্য দিল সরকার

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ভ্যাকসিন নেওয়ার পরেও যাঁরা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, তাঁদের সম্পর্কে নির্দিষ্ট তথ্য দিল সরকার। বুধবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে, কোভিড ভ্যাকসিন নেওয়ার পরে ওই রোগে আক্রান্ত হয়েছেন খুব কম সংখ্যক মানুষ। আইসিএমআরের ডিরেক্টর জেনারেল বলিরাম ভার্গব বলেন, যাঁরা টিকা নিয়েছেন, তাঁদের ১০ হাজার জনের মধ্যে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন দুই থেকে চারজন। সংখ্যাটা খুবই কম। এই নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই।

এরপরে নির্দিষ্ট তথ্য দিয়ে তিনি জানান, ভারত বায়োটেকের তৈরি কোভ্যাক্সিনের প্রথম ডোজ যাঁরা নিয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে ০.০৪ শতাংশ কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন। কোভ্যাক্সিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন এমন ৯৩ লক্ষ ৫৬ হাজার ৪৩৬ জনের মধ্যে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন ৪২০৮ জন। কোভ্যাক্সিনের দু’টি ডোজ নেওয়ার পরে যাঁরা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, তাঁদের সংখ্যাও নিতান্তই কম। এমন ১৭ লক্ষ ৩৭ হাজার ১৭৮ জনের ওপরে সমীক্ষা চালিয়ে দেখা গিয়েছে, তাঁদের মধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন মাত্র ৬৯৫ জন।

সেরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি কোভিশিল্ড যাঁরা নিয়েছেন, তাঁদের ক্ষেত্রে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আরও কম। ওই টিকা নেওয়ার পরে মাত্র ০.০২ শতাংশ করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। কোভিশিল্ডের প্রথম টিকা নিয়েছিলেন এমন ১ কোটি ৩ লক্ষ ২৭৪৫ জনের ওপরে সমীক্ষা চালিয়ে দেখা গিয়েছে, তাঁদের মধ্যে মাত্র ১৭ হাজার ১৪৫ জন কোভিড পজিটিভ হয়েছেন।

কোভিশিল্ডের দু’টি টিকা নেওয়ার পরে আক্রান্ত হয়েছেন ০.০৩ শতাংশ। কোভিশিল্ডের দু’টি টিকা নিয়েছেন, এমন ১ কোটি ৫৭ লক্ষ ৩২ হাজার ৭৫৪ জনের মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫০১৪ জন।

সরকারের বক্তব্য, এই পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, ভারতে ব্যবহৃত ভ্যাকসিন নিরাপদ ও কোভিড প্রতিরোধে উপযোগী। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, ভ্যাকসিনের একটি ডোজ নিলে তা কোভিডকে প্রতিরোধ করতে পারবে না ঠিকই কিন্তু আক্রান্ত ব্যক্তির রোগ কখনই গুরুতর হয়ে উঠবে না।

বুধবার সকালে জানা যায়, গত চব্বিশ ঘণ্টায় গোটা দেশে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লক্ষ ৯৫ হাজার জন মানুষ। একদিনে মৃত্যু হয়েছে ২০২৩ জন কোভিড রোগীর। গত বছর ভারতে প্রথম কোভিড সংক্রমণ ধরা পড়ার পর একদিনে এতো আক্রান্ত এই প্রথম বার। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এত মৃত্যুও আগে হয়নি।

সব থেকে খারাপ অবস্থা মহারাষ্ট্রে। সেখানে একদিনে ৬২ হাজারের বেশি মানুষ একদিনে আক্রান্ত হয়েছেন, ৫১৯ জন কোভিড রোগীর মৃত্যু হয়েছে। দিল্লিতে মারা গিয়েছেন আরও ২৭৭ জন। তা ছাড়া কর্নাটক, কেরল, অন্ধ্রপ্রদেশেও সংক্রমণ লাফিয়ে বাড়ছে। অধিকাংশ রাজ্যেই কোভিড বেড ক্রমশই অপ্রতুল হয়ে পড়ছে। সেই সঙ্গে চিন্তা বাড়াচ্ছে অক্সিজেনের সাপ্লাই।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More