না আঁচালে বিশ্বাস নেই, মোদীকে সংসদেই কৃষি আইন বাতিল করতে হবে

0

হান্নান মোল্লা

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Modi) শুক্রবার জাতির উদ্দেশে ভাষণে ঘোষণা করেছেন, তিন কৃষি আইন বাতিল করা হবে। যাকে আমরা বলছিলাম কালা আইন। যে আইন দেশের কৃষকদের ঠেলে দিচ্ছিল এক ঘুটঘুটে অন্ধকারের দিকে। প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণাকে আমরা স্বাগত জানাচ্ছি। তবে এই ঘোষণা তখনই বাস্তবায়িত হবে যখন সংসদে এই তিনটি আইন বাতিল হবে।

এই সরকার যে মনোভাব নিয়ে চলছে তাতে প্রধানমন্ত্রীর আজকের ঘোষণা খানিকটা জোচ্চোরের বাড়ি ভাত খাওয়ার মতো। না আঁচালে বিশ্বাস নেই।

তাই প্রাথমিক ভাবে এটা বলতে পারি, আসন্ন সংসদের শীত অধিবেশনে এই তিন কৃষি আইন যতক্ষণ না বাতিল হচ্ছে ততক্ষণ রাস্তা ছাড়ার কোনও অবকাশ নেই। কারণ ঘোষণা আর খাতায় কলমে বাস্তবায়িত হওয়ার মধ্যে একটা ফারাক রয়েছে।

মোদীর ঘোষণায় থামছে না কৃষক আন্দোলন, চলবে সংসদে বিল বাতিল না হওয়া পর্যন্ত

এখানে আরও একটি কথা সকলের জানা উচিত। চলমান কৃষক আন্দোলনের দুটি দিক রয়েছে। একটা দিক, এই কৃষি আইন বাতিল করা। যা কৃষকদের ভবিষ্যতের ১২টা বাজাবে, কর্পোরেটের হাতে তুলে দেবে গতর খেটে ফলানো ফসলকে। আর একটি দিক হল, দেশের অন্নদাতাদের বর্তমানকে সুরক্ষিত করা। মিনিমাম সাপোর্ট প্রাইস তথা ফসলের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য সরকারকে যথাযথ ভাবে নির্ধারিত করতে হবে। দেশে প্রতিদিন গড়ে ৫২ জন কৃষক আত্মহত্যা করছেন ফসলের ন্যায্য মূল্য না পেয়ে। ঋণের জালে জর্জরিত হয়ে পড়া কৃষককে তাঁর ফসলের সঠিক দাম সরকারকেই সুনিশ্চিত করতে হবে। ইচ্ছে না থাকলেও তা করতেই হবে। সুতরাং সেই দাবিতে আন্দোলন চলবে।এখানে আমি একটা কথা স্পষ্ট করতে চাই, এই আন্দোলনে শুধুমাত্র সারা ভারত কৃষক সভা নেই। দেশের ৫০০-র বেশি কৃষক সংগঠন রয়েছে সংযুক্ত কিষান মোর্চায়। এটা আমার বা আমাদের একার আন্দোলন নয়। আগামীর আন্দোলনের রূপরেখা কী হবে তা ঠিক করতে শনিবার আমরা বৈঠক করব। সেখান থেকেই ঐক্যবদ্ধ ভাবে পরবর্তী আন্দোলনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে। তবে আজকের দিনটা দেশের কৃষকদের কাছে উল্লেখযোগ্য দিন। কিন্তু সংসদে যতক্ষণ না আইন বাতিল হচ্ছে ততক্ষণ……. না আঁচালে বিশ্বাস নেই।

(লেখক সারা ভারত কৃষক সভার সধারণ সম্পাদক, সংযুক্ত কিষান মোর্চার অহ্বায়ক ও সিপিআইএম পলিটব্যুরোর সদস্য)

পড়ুন দ্য ওয়ালের সাহিত্য পত্রিকা ‘সুখপাঠ’

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.