আর যেন লকডাউন না হয়

1

ব্যাপারটা খুবই বিপজ্জনক। কোভিড সংক্রমণ ফের গুণোত্তর হারে বাড়ছে। মানুষের ভয় পাওয়াই স্বাভাবিক। ভয় থেকে ছড়াচ্ছে নানা গুজব। সবচেয়ে বেশি যে গুজবটা ছড়াচ্ছে, তা হল, শীঘ্র লকডাউন হবে। সোমবার নবান্ন থেকে বলা হয়েছে, লকডাউন নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। তাও মানুষের মুখে মুখে ঘুরছে, লকডাউন হবে।

গুজব ছড়াচ্ছে মূলত সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে। হয়তো একদল লোক স্রেফ মজা করার জন্যই এইসব ছড়াচ্ছে। আবার এর পিছনে অন্য মতলব থাকাও অসম্ভব নয়। শীঘ্র লকডাউন হবে ভেবে অনেকে হয়তো নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র সংগ্রহ করে রাখতে চাইবে। সেই সুযোগে অসাধু ব্যবসায়ীরা দাম বাড়াতে পারে।

যারা গুজব ছড়াচ্ছে তারা নিঃসন্দেহে দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ করছে। আবার যারা মাস্ক ছাড়া ঘুরে বেড়াচ্ছে, স্যানিটাইজার ব্যবহার করছে না, তারাও কম দায়িত্বজ্ঞানহীন নয়। অতিমহামারীর সময় এমন হয়। সংক্রমণের হার কিছু কমতেই মানুষ অসতর্ক হয়ে পড়ে। সেই সুযোগে আসে সেকেন্ড ওয়েভ। ১০০ বছর আগে দুনিয়া জুড়ে যে ফ্লু প্যানডেমিক হয়েছিল, তাতে এই সেকেন্ড ওয়েভ প্রথমবারের চেয়ে মারাত্মক হয়ে উঠেছিল।

এই সময় আমাদের রাজনীতিবিদরাও খুব দায়িত্বজ্ঞানের পরিচয় দিচ্ছেন না। পশ্চিমবঙ্গ সহ কয়েকটি রাজ্যে ভোট হবে আর কিছুদিনের মধ্যে। তাই পুরোদমে চলছে প্রচার। মিছিল, মিটিং কিংবা জনসভায় ভিড় করছেন মানুষ। সেখানে সামাজিক দূরত্ব মানা হচ্ছে না। সত্যি বলতে কী, সামাজিক দূরত্ব মেনে মিটিং-মিছিল করা সম্ভবও নয়। নির্বাচন কমিশনের উচিত, ভোটের প্রচার নিয়ে কড়াকড়ি করা। প্রচারের কিছু নিয়ম বেঁধে দেওয়া। বড় ধরনের সমাবেশ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা।

মহারাষ্ট্রের দু’-একটি জায়গায় ইতিমধ্যে লকডাউন করা হয়েছে। গুজরাতের মতো রাজ্যেও কোনও কোনও শহরে চালু হয়েছে নাইট কার্ফু। করোনা ঠেকাতে শেষ হাতিয়ার লকডাউন। গতবছর ২৫ মে থেকে দেশ জুড়ে লকডাউন করা হয়। তখন সরকারের হাতে ভ্যাকসিন ছিল না। এখন আছে। ভ্যাকসিনের অস্ত্রেই সেকেন্ড ওয়েভকে ঠেকানোর চেষ্টা হচ্ছে। মঙ্গলবারই কেন্দ্রীয় সরকার ঘোষণা করেছে, ৪৫ বছরের বেশি বয়স যাঁদের, পয়লা এপ্রিল থেকে তাঁদের সবাইকে টিকা দেওয়া হবে।

গতবছর লকডাউনের জন্য দেশের অর্থনীতিতে মন্দা দেখা গিয়েছিল। লক্ষ লক্ষ মানুষ কাজ হারিয়েছিলেন। পরিযায়ী শ্রমিকদের দুর্দশা হয়েছিল সবচেয়ে বেশি। সেই ধাক্কা সামলে অর্থনীতি সবে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে। এইসময় যদি ফের কারখানার চাকা থামিয়ে দিতে হয়, তাহলে দেশ এক ধাক্কায় অনেকখানি পিছিয়ে যাবে।

আমরা আশা করব, ভ্যাকসিনের অস্ত্রেই এবার বাগে আসবে করোনা। আর লকডাউন করতে হবে না।

You might also like
1 Comment
  1. […] your experience. We’ll assume you’re ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read […]

Leave A Reply

Your email address will not be published.