দিনেদুপুরে বাড়ি থেকে লুঠ টাকা ও গয়না, পরপর চুরির ঘটনায় আতঙ্ক পালসিটে

দ্য ওয়াল ব্যুরো, পূর্ব বর্ধমান: পরপর আটটা চুরির ঘটনা ঘটল একই এলাকায়। বিন্দুমাত্র অসতর্ক হলেই গৃহস্থের সর্বস্ব লুঠ করে চম্পট দিচ্ছে দুস্কৃতীরা। পূর্ব বর্ধমানের জাতীয় সড়কের কাছে পালসিট এলাকায় একের পর এক এই দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা ঘটেই চলেছে। অবিলম্বে এর বিহিত চান এলাকাবাসী।

মঙ্গলবারের ঘটনাও চমকে যাওয়ার মতো। দিনেদুপুরে বাড়ি থেকে লুটপাট হল সোনার গয়না ও টাকা। মঙ্গলবার দুপুরের এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পূর্ব বর্ধমানের পালসিটে। পাঁচ ভরির বেশি সোনার গয়না এবং বেশ কিছু টাকা গায়েব হয়েছে। ঘটনার বিবরণে জানা গেছে; পালসিটে বাড়ি মানবেন্দ্র মুখার্জি ও কল্পনা মুখার্জির। ওই দম্পতি ব্যক্তিগত কাজে কিছুক্ষণ বাইরে ছিলেন। তাদের ছেলে দীপঙ্কর মুখার্জি একজন চিকিৎসক। তিনি সকালে চেম্বারে চলে যান। ফলে কিছুক্ষণ বাড়ি ফাঁকাই ছিল। ফিরে এসে বাড়িঘরের অবস্থা দেখে তাঁরা হতবাক হয়ে যান। তারা দেখেন বাড়ির সব আসবাব ও জামাকাপড় অগোছালো হয়ে পড়ে আছে। পাঁচ ভরির বেশি সোনার গহনা ও আলমারিতে থাকা টাকা লোপাট হয়েছে। আশ্চর্যের ব্যাপার পাশেই থাকা ল্যাপটপ, ট্যাব বা মোবাইলফোনে হাত ও দেয়নি দুষ্কৃতীরা।

ঘটনার খবর পেয়ে মেমারি থানার পুলিশ হাজির হয়। তারা তদন্ত শুরু করেছে। এ প্রসঙ্গে ডাঃ দীপঙ্কর মুখার্জি বলেন, ‘‘বাবা মা একটু বাইরে গেছিলেন। তার মধ্যেই এই কাণ্ড। আমরা যতদূর যেতে হয় যাব এর ফয়সালার জন্য।’’

তাঁদের প্রতিবেশী সঞ্জীব কোনার বলেন, ‘‘এই নিয়ে আটবার একই ধরণের দুঃসাহসিক ঘটনা ঘটল এই এলাকায়। কদিন আগেও একটি এটিএমে ভাঙার চেষ্টা হয়। আমরা আতঙ্কিত। কিছু একটা ব্যবস্থা দরকার।’’ মুখার্জি বাড়ির বাসিন্দারা জানান, কয়েকদিন ধরে তাঁদের বাড়িতে রাজমিস্ত্রির কাজ চলছিল। আজ তা বন্ধ ছিল। সেইজন্যই বাড়িতে টাকা রাখা ছিল। এভাবে সর্বস্ব খোওয়া যাবে ভাবেননি কেউই।

পুলিশ কর্তারা জানান, এটিএম ভাঙার চেষ্টার ঘটনায় দুজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। অন্য চুরিগুলির সঙ্গেও এদের গ্যাংয়ের কোনও যোগ রয়েছে কি না তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More