ঝগড়া চরমে, রাগের মাথায় রেললাইনে ঝাঁপ স্ত্রীর, কাটা গেল স্বামীর হাতও

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দাম্পত্য কলহের মর্মান্তিক পরিণতি। ঝগড়া করতে করতে প্রাণটাই চলে গেল স্ত্রীর। আর ভয়াবহ পরিণতি হল স্বামীরও।

ঘটনাটি ঘটেছে জামবনী থানার গিধনি-খাটখুরা স্টেশনের গোপালপুর এলাকায়। শনিবার সকালে স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান স্ত্রী। ট্রেন আসার শব্দ শুনেই বেরিয়ে পড়েছিলেন তিনি। ছুটে গিয়ে রেললাইনে ঝাঁপও দেন। ফলে নিমেষে ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় তাঁর দেহ।

স্ত্রীকে বাঁচাতে গিয়েই তাঁর পিছনে ছুটে ছিলেন স্বামীও। চলন্ত ট্রেনের ধাক্কায় কাটা পড়ে তাঁর বাঁ হাত। জানা গেছে মৃতের নাম মিঠু শবর (৩০)। তাঁর স্বামী নভেন্দু শবর এখন ঝাড়গ্রাম জেলা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

স্থানীয় ও রেল পুলিশ সূত্রের খবর, বেশ কয়েকমাস ধরেই ঝগড়া চলছিল ওই দম্পতির। পেশায় দিনমজুর নভেন্দুকে সন্দেহ করতেন মিঠু, অশান্তি চলছিল তা নিয়েই। ৮ বছর আগে বিয়ে হয়েছিল তাঁদের। রয়েছে এক ছেলে আর দুই মেয়ে।

শুক্রবার স্বামী ও স্ত্রীর অশান্তি চরমে ওঠে। রাগে মিঠু বাড়ি ছেলে যান। স্থানীয় সিভিক ভলান্টিয়ার্সকেও ডেকে আনেন তিনি। সেদিন রাতে ওই গ্রামেই এক আত্মীয়ের বাড়িতে কাটান তিনি। শনিবার সকালে বাড়ি ফেরার পরই ফের অশান্তি শুরু হয়। তারই পরিণতি হয় মর্মান্তিক।

হাসপাতালের বেডে শুয়ে নভেন্দু বলেন, ‘‘তিনমাস করে ধরে আমাকে সন্দেহ করছিল। সবসময় বলত আমার সঙ্গে কোন মহিলার সম্পর্ক রয়েছে। আমি বারবার বুঝিয়েছি, এরকম কোন কারোর সাথে সম্পর্ক নেই। কিন্তু আমার কথা বিশ্বাস করত না। রাগের মাথায় ছুটে গিয়ে ট্রেনের সামনে ঝাঁপ দিল। ওকে বাঁচতে গিয়ে আমার বাঁ হাতটা চলে গেল।’’

তবে নভেন্দুর দাদা মোহন শবর বলেন, ‘‘আমরা দু’ভাই বাঁশ কাটার কাজ করি। এদিনও কাজে যাওয়ার কথা ছিল। আমি বাড়িতে খাচ্ছিলাম। হঠাৎ আমার বোন পূর্ণিমা এসে জানায়, এরকম ঘটনা ঘটেছে। গিয়ে দেখি ভাই একপাশে পড়ে রয়েছে। বউমা চ্ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে।’’ মোহন আরও বলেন, ‘‘ভাইয়ের সঙ্গে কোন মহিলার সম্পর্ক ছিল না। জানি না কেন এজন্য অশান্তি হত।’’

ঘটনায় মিঠুর বাপের বাড়ির লোকজন কোন লিখিত অভিযোগ জানাননি। রেল পুলিশ অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করেছে। ঝাড়গ্রাম জিআরপি থানার ওসি হরি বাহাদুর শেরপা বলেন, ‘‘খুবই দুঃখজনক ঘটনা। তদন্ত চলছ। প্রাথমিক ভাবে জানতে পেরেছি, স্ত্রীকে বাঁচাতে গিয়েই স্বামীর হাত কেটেছে। তবে স্ত্রীকে বাঁচাতে পারেনি। মাল গাড়ির ধাক্কায় ঘটনাটি ঘটেছে। ’’

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More