রবিবার, ফেব্রুয়ারি ২৪

গতি বাড়িয়ে ট্রেন ১৮-এর ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায়, দিনভর ট্রোল হলেন পীযূষ গয়াল

দ্য ওয়াল ব্য়ুরো: এটা পাখিও নয়, এটা বিমানও নয়। এটা একটা নকল ভিডিও।
আপনার ভিডিও এডিটর একটু বেশিই দ্রুত। আসলটা দেখুন।
এই ট্রেনটা দেখুন, আপনার ট্রেনের থেকেও জোরে ছুটছে।

এ রকমই নানা মন্তব্য ও ব্যঙ্গে ভরেছে টুইটার। রেলমন্ত্রী পীযূষ গয়াল তাঁর টুইটার হ্যান্ডেলে ট্রেন ১৮-র একটি ভিডিও পোস্ট করেন। এর পরেই ঝড় ওঠে বিদ্রুপ ও সমালোচনার। কিন্তু কী নিয়ে এত হাসাহাসি করছেন নেটিজেনরা?

ভিডিওয় দেখা যায়, ট্রেন ১৮, যা পরে ‘বন্দে ভারত এক্সপ্রেস’ নাম প্রাপ্ত, বিপুল গতিতে ছুটে চলেছে। রেল মন্ত্রী তাঁর পোস্টে লেখেন— ‘‘ এটা একটা পাখি… এটা একটা বিমান… দেখুন ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ উদ্যোগে নির্মিত ভারতের প্রথম সেমি-হাইস্পিড ট্রেন, বন্দে ভারত এক্সপ্রেস বিদ্যুৎ গতিতে ছুটে চলেছে।’’

১৮ ফেব্রুয়ারি ট্রেনটি আনুষ্ঠানিক ভাবে যাত্রী শুরু করবে। তাই সেই উপলক্ষেই টুইটারের সঙ্গে সঙ্গে তিনি তাঁর অফিসিয়াল ফেসবুক অ্যাকাউন্টেও ভিডিও-সহ পোস্টটি করেন।

দেখে নিন সেই টুইট।

 

ভিডিওটি পোস্ট করার কিছু ক্ষণের মধ্যেই হইচই শুরু হয় পোস্টটিকে ঘিরে। নেটিজেনদের দাবি, ভিডিওটি নকল। বন্দে ভারত এক্সপ্রেস মোটেই এতটা গতিসম্পন্ন নয়। পরীক্ষা করে দেখা যায়, গয়াল তাঁর পোস্টে যে ভিডিওটি ব্যবহার করেছেন, সেখানে ট্রেনটির স্পিড এডিট করে অন্তত দ্বিগুণ করা হয়েছে।

২০১৮-এর ২০ ডিসেম্বর ইউটিউব চ্যানেল ‘দ্য রেল মেল’-এ প্রকাশিত হয় বন্দে ভারত এক্সপ্রেসের একটি ভিডিও। সেটিতে এই ট্রেনের যে গতি দেখা যাচ্ছে, তার সঙ্গে তুলনা করলে রেল মন্ত্রীর ভিডিওটিতে কারসাজি করে গতি বাড়ানো হয়েছে বলেই বোঝা যাচ্ছে স্পষ্ট। এর পরেই বিপাকে পড়েন স্বয়ং রেলমন্ত্রী।

বিকৃত পোস্ট দেখে ক্ষেপে গিয়েছেন বহু মানুষ। দাবি উঠছে পোস্টটি ডিলিট করে আসল ভিডিও পোস্ট করার। কিন্তু এখনও পর্যন্ত রেলমন্ত্রীর টুইটে বহাল তবিয়তে বিরাজ করছে বিতর্কিত ভিডিওটিই।

এ নিয়ে আক্রমণ শানাতে ছাড়েনি কংগ্রেস। তারা এটাকে বিজেপির ঘোটালা বলে অভিহিত করেছে। বলেছে, ভোটের আগে ভুয়ো ভিডিও পোস্ট করে নিজেদের বড় করে দেখাতে চাইছে।

Shares

Comments are closed.