বুকে ব্যথা, বিশেষ এনআইএ আদালতে চিকিৎসার আর্জি অ্যান্টিলাকাণ্ডে অভিযুক্ত পুলিশকর্তা শচীন ভাজের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মুকেশ অম্বানির বাড়ির সামনে থেকে বিস্ফোরকবোঝাই গাড়ি উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে মহারাষ্ট্র পুলিশের কর্তা শচীন ভাজকে। বর্তমানে তিনি রয়েছেন ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি বা এনআইএ-র হেফাজতে। কিন্তু রহস্যময় এই বিস্ফোরককাণ্ডের জট খুলছে না কিছুতেই, বরং দিন দিন তা আরও জটিল হচ্ছে। তদন্তের মাঝে গোয়েন্দা হেফাজতেই এবার ডাক্তারি পরিষেবা চাইলেন সাসপেন্ড হওয়া পুলিশ অফিসার।

সূত্রের খবর, শনিবার বুকে ব্যথা নিয়ে এনআইএ-র বিশেষ আদালতে চিকিৎসার আর্জি জানিয়েছেন শচীন ভাজ। গত কয়েকদিন ধরেই নাকি তিনি বুকে ব্যথায় ভুগছেন। বৃহস্পতিবার চিকিৎসা পরিষেবার দাবি জানিয়ে আবেদনপত্র দাখিলও করেছিলেন তিনি। আজ শনিবার তাঁকে তদন্তের স্বার্থে ফের আদালতে হাজিরা দিতে হবে। আর সেখানেই শচীন ভাজের চিকিৎসার আবেদন বিবেচনা করবেন বিশেষ আদালতের বিচারপতি।

শোনা যাচ্ছে,  হার্ট ব্লকের মতো কিছু সমস্যা দেখা দিয়েছে ভাজের। শনিবার আদালতে তাঁর আইনজীবী এ বিষয়ে তাঁর স্বাস্থ্যের রেকর্ডও বিচারকের কাছে পেশ করতে চলেছেন।

এদিকে অম্বানির অ্যান্টিলার সামনে থেকে বিস্ফোরক উদ্ধারের ঘটনায় শুক্রবার ফের একটি রহস্যময় গাড়ির সন্ধান পেয়েছে এনআইএ। একটি সাদা মার্সিডিজ। আপাতত গাড়িটি নিজেদের অফিসেই রেখেছে এনআইএ। গোয়েন্দা সূত্রের খবর, মিনা জর্জ নামে এক রহস্যময়ী মহিলা গাড়িটি ব্যবহার করেছিলেন। তাঁকে শুক্রবারই গ্রেফতার করা হয়। তবে এর বেশি কিছু নতুন এই গাড়ি সম্পর্কে জানা যায়নি। সাদা মার্সিডিজটি নিয়ে এ পর্যন্ত মোট ৯টি গাড়ি উদ্ধার করল এনআইএ। এর আগে একটি সবুজ স্করপিও, একটি ইনোভা, দুটি মার্সিডিজ, একটি ল্যান্ড ক্রুজার, একটি কালো ভলভো, একটি আউট ল্যান্ডার এবং আরও একটি সাদা মার্সিডিজ তদন্তে সামনে এসেছে।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি  অম্বানির বাড়ির সামনে থেকে বিস্ফোরক পদার্থ বোঝাই একটি গাড়ি পাওয়া গিয়েছিল। তার সঙ্গে ছিল হুমকি চিঠিও। এর কিছুদিন পরেই গাড়িটির মালিক মনসুখ হিরেনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এই খুনের মামলাতেই গ্রেফতার হন ভাজ।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More