‘চরম রাষ্ট্রদ্রোহিতা’, ‘শত্রুকে সহযোগিতা’, তিন সেনা জওয়ানের ফাঁসি সৌদি আরবে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সৌদি আরবে অপরাধের সাজা খুব কঠিন, সারা দুনিয়াই জানে।  চুরি, ছিনতাই, রাহাজানি থেকে সরকারের বিরুদ্ধাচরণ, সবই গুরুতর অপরাধ হিসাবে দেখা হয় সেদেশে। শনিবার ‘চরম রাষ্ট্রদ্রোহিতা’ ও ‘শত্রুপক্ষের সঙ্গে সহযোগিতা’র অপরাধে তিন সেনা জওয়ানকে দোষী সাব্যস্ত করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে সৌদি আরবে। বিশেষ আদালতে ন্যয্য বিচারের পর তাদের মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয় বলে জানিয়েছে সৌদি প্রতিরক্ষামন্ত্রক। এরা প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের সেনা ছিল।

মন্ত্রক অবশ্য শত্রুপক্ষ কারা, কাদের হয়ে তারা গোপনে কাজ করছিল, তা জানায়নি। তবে তিনজনের মৃত্যুদণ্ডই কার্যকর করা হয়েছে ইয়েমেন সংলগ্ন দেশের দক্ষিণ প্রদেশে সেখানে ইরান-ঘনিষ্ঠ হাউথি আন্দোলনের বিরুদ্ধে গত ছ বছরের বেশি সংঘাত চলছে সৌদির। ইরানকেও শত্রু বলেই দেখে তারা।

গোটা দুনিয়ার চোখে অবশ্য ভিলেন সৌদির শাসকরা। গত বছর সৌদির ইস্তানবুল কনস্য়ুলেটে সাংবাদিক জামাল খাসোগির হত্যাকাণ্ড , নারী অধিকার আন্দোলনকর্মীদের আটককে কেন্দ্র করে মানবাধিকারকে বিন্দুমাত্র সম্মান করে না তারা, এটাই আন্তর্জাতিক মহলের অভিযোগ। অ্যামেনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল সহ মানবাধিকার রক্ষা সংগঠনগুলি  নির্যাতন, অন্যায় বিচারের অভিযোগ উল্লেখ করে সৌদি প্রশাসনকে মৃত্যুদণ্ডের ব্যবহার বন্ধ রাখার ডাক দিয়েছে। যদিও যাবতীয় অভিযোগ খারিজ করেছে সৌদি আরব। সেদেশের সরকারি সংগঠন মানবাধিকার কমিশন অবশ্য পরিসংখ্যান দিয়েছে, ২০২০ সালে সৌদি আরবে ফাঁসি হয়েছে ২৭ জনের। সাম্প্রতিক কয়েকটি বছরে এটাই সবচেয়ে কম ফাঁসির সংখ্যা। এর আগে ১৮৫ জনকে ফাঁসি দিয়ে রেকর্ড করেছিল তারা।  ২০১৯ সালে সৌদি আরব বিশ্বে ফাঁসিতে ঝোলানোয় তিন নম্বরে ছিল বলে জানিয়েছিল অ্যামেনেস্টি।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More