গৃহঋণে সুদ কমাল স্টেট ব্যাঙ্ক

দ্য ওয়াল ব্যুরো : করোনা সংকটের মধ্যে গৃহঋণে সুদ কমাল স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া। এখন থেকে ৩০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত গৃহঋণে বার্ষিক সুদ হবে ৬.৭ শতাংশ। ৩০ লক্ষ থেকে ৭৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত যাঁরা ঋণ নেবেন, তাঁদের বার্ষিক ৬.৯৫ শতাংশ হারে সুদ দিতে হবে। ৭৫ লক্ষ টাকার বেশি ঋণ নিলে সুদ দিতে হবে ৭.০৫ শতাংশ। সুদের নতুন হার কার্যকরী হবে ১ মে থেকে।

ভারতের বৃহত্তম ঋণদাতা ব্যাঙ্ক এসবিআই জানিয়েছে, মহিলা ঋণগ্রহীতারা গৃহঋণের সুদের ওপরে পাঁচ বেসিস পয়েন্ট ছাড় পাবেন। যে ব্যক্তিরা ‘ইয়োনো’ অ্যাপের মাধ্যমে গৃহঋণের জন্য আবেদন করবেন, তাঁদেরও ছাড় মিলবে পাঁচ বেসিস পয়েন্ট। স্টেট ব্যাঙ্ক জানিয়েছে, সুদের হার কমানোর ফলে অনেকে গৃহঋণ নিতে উৎসাহিত হবেন।

এসবিআইয়ের ম্যানেজিং ডিরেক্টর (রিটেল ও ডিজিট্যাল ব্যাঙ্কিং) সি এস শেঠি বলেন, “হোম ফিনান্সের ক্ষেত্রে স্টেট ব্যাঙ্কই মার্কেট লিডার। হোম লোনের বর্তমান সুদের হার অনুযায়ী ইএমআই যথেষ্ট পরিমাণে কমে আসবে।” শেঠির ধারণা, গৃহঋণে সুদ কমার ফলে চাঙ্গা হবে রিয়েল এস্টেট ইন্ডাস্ট্রি।

হাউজিং ডট কম, মাকান ডট কম এবং প্রপ টাইগার ডট কমের গ্রুপ চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার ধ্রুব আগরওয়াল বলেন, “এখন গৃহঋণের সুদ যে হারে কমেছে, তা ঐতিহাসিক বলা যায়। এতদিন যাঁরা বাড়ি কেনেননি, তাঁরাও এবার স্বপ্নের বাড়িটি কিনতে উৎসাহী হবেন।”

গত এপ্রিলেই গৃহঋণের নতুন হার ঘোষণা করে স্টেট ব্যাঙ্ক। তাতে সুদের হার শুরু হয়েছিল ৬.৯৫ শতাংশ থেকে। এখনও পর্যন্ত ওই ব্যাঙ্ক ৫ লক্ষ কোটি টাকা গৃহঋণ দিয়েছে। দেশে গৃহঋণের বাজারের ৩৪ শতাংশ ওই ব্যাঙ্কের দখলে রয়েছে।

একইসঙ্গে এদিন বিভিন্ন ক্ষেত্রে আয়কর জমা দেওয়ার সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। শনিবার সেন্ট্রাল বোর্ড অব ডায়রেক্ট ট্যাক্সেস এক সার্কুলার দিয়ে জানায়, ১৯৬১ সালের আয়কর আইনের ১১৯ ধারা অনুযায়ী করদাতাদের কিছু ছাড় দেওয়া হল।

ওই সার্কুলারে নির্দিষ্ট করে বলা হয়েছে, আয়কর আইনের চার ও পাঁচ নম্বর উপধারা অনুয়ায়ী যাঁদের ২০২১ সালের ৩১ মার্চের আগে আয়কর জমা দেওয়ার কথা ছিল, তাঁরা ৩১ মে-র মধ্যে জমা দিতে পারবেন। কমিশনারের কাছে আপিলের সময়সীমা ২০২১ সালের ১ এপ্রিল থেকে বাড়িয়ে ৩১ মে পর্যন্ত করা হল। ডিসপিউট রেজলিউশান প্যানেলের কাছে আবেদন করার সময়সীমা ১ এপ্রিল থেকে বাড়িয়ে ৩১ মে পর্যন্ত করা হল। আয়কর আইনের ১৪৮ নম্বর ধারা অনুযায়ী যাঁদের ১ এপ্রিলের মধ্যে আয়কর জমা দেওয়ার কথা ছিল, তাঁরা ৩১ মে-র মধ্যে জমা দিতে পারবেন। ফর্ম ৬১ জমা দেওয়ার শেষ দিন ছিল ৩০ এপ্রিল। ওই সময়সীমা বাড়িয়ে ৩১ মে করা হল।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More