ছেলে বলে অবহেলা করবেন না, প্রয়োজন ত্বকের যত্ন নেওয়া! ট্রাই করুন এগুলো

দ্য ওয়াল ব্যুরো: “ছেলেদের আবার রূপচর্চা লাগে নাকি?”-এই কথা ভেবে অনেকেই ভুরু কুঁচকান বা হেসে ফেললেন! কিন্তু আদৌ এটা সেরকম বিষয় নয়। আসলে ছেলেদেরও চাই স্কিন কেয়ার প্রতিদিন।

ছেলেদের সকাল থেকেই ছেলেদের বাইরের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয় যায়। তাঁরা ঘরের বাইরেই দিনের বেশির ভাগ সময় কাটায়। রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে, ধুলোবালির জন্য ত্বকের রঙ তামাটে, রুক্ষ ও ম্লান হয়ে যায়। ছেলেদের ত্বকের এ রুক্ষতা দূর করতে নিয়মিত যত্নের প্রয়োজন। এছাড়া ছেলেদের ত্বক মেয়েদের তুলনায় অনেক বেশি পুরু। তাই মেয়েদের ত্বকচর্চা থেকে পুরুষদের রূপচর্চার ধরনটাই আলাদা। ছেলেদের সবচেয়ে বেশি সমস্যার জায়গা হলো ভুরুর রেখার ভাঁজ, চোখের কোলের ত্বকে কুঁচকে যাওয়া দাগ, ঝুলে পড়া গাল আর এবড়ো-থেবড়ো ছিদ্রযুক্ত অমসৃণ ত্বক। অবশ্য ত্বকের যত্নে ছেলেরা এখন অনেক সচেতন। রোদ, বাইরের ময়লা, বিভিন্ন দূষণ ইত্যাদি ত্বককে করে তোলে শুষ্ক ও খরখরে। প্রতিদিন তাই ত্বকের যত্ন নেওয়া উচিত। দাড়ি কামানো প্রায় সব ছেলেদেরই রোজকার কাজ। এছাড়াও তাঁদের ত্বক অনুযায়ী প্রয়োজন প্রতিদিনের যত্ন।

বেশিরভাগ ছেলেরা তাঁদের ত্বকের ধরণ জানেন না। সত্যি বলতে গেলে, অনেক লোক ত্বকের “প্রকার” রয়েছে তা ই জানেন না। ত্বকের টাইপ জানা ত্বকের যত্ন নেওয়ার প্রথম পদক্ষেপ।

১. ক্লিনজার

ছেলেদের মুখের ত্বক মেয়েদের তুলনায় শক্ত। ধুলোবালি ও ময়লায় ত্বক নষ্ট হয়ে যায়। সেই জন্য সকালে উঠে গরম জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। এরপর মুখে ফেস ওয়াশ মেখে নিয়ে কিছুক্ষন অপেক্ষা করুন। তারপর ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে করে ক্লিনজার/ফেসওয়াশ ত্বকের গভীরে গিয়ে কাজ করতে পারবে। তাই অবশ্যই নিয়মিত ক্লিনজার দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন। ক্লিনজার/ফেসওয়াশ নির্বাচনের ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনার ত্বকের ধরনের সঙ্গে যায় এমন ক্লিনজার নির্বাচন করুন।

টিপস

আপনার মুখ পরিষ্কার ময়লা, তেল এবং অন্যান্য অযাচিত ধ্বংসাবশেষ থেকে মুক্তি দিতে পারে এবং আপনার ত্বককে সুস্থ রাখে। এই ধাপের অন্যান্য পদক্ষেপে যাওয়ার আগে আপনার ত্বক পরিষ্কার হওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

২. স্ক্র্যাবিং

বেসিক স্কিন কেয়ারের সঙ্গে সঙ্গে স্ক্র্যাবিং জরুরি। তাই সারাদিনে কাজের মাঝে একটু সময় বের করে মুখে, গলায় ও ঘাড়ে কোনও ভাল কোম্পানির মাইল্ড স্ক্র্যাবার লাগিয়ে ভেজা হাতে সার্কুলার মুভমেন্টে কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে ত্বকের মরা কোষ চলে যাবে। ফলে ত্বক আগের চেয়ে ফ্রেশ ও উজ্জ্বল হবে। চালের গুঁড়ো, দই ও সামান্য মধু মিশিয়ে ঘরে স্ক্র্যাবার তৈরি করে নিতে পারেন। রাতে ঘুমানোর আগে কয়েক ফোঁটা আমন্ড অয়েল নিয়ে চোখের চারপাশে লাগিয়ে এক মিনিট ম্যাসাজ করুন। চোখের চারপাশের চামড়া ভাল থাকবে। ডার্ক সার্কেলের সমস্যা থাকলেও কমে যাবে।

টিপস

স্ক্র্যাবিং করার সময় অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে, যেন খুব জোরে জোরে না ঘষা হয়। যদি বেশি জোরে স্ক্র্যাবিং করা হয় তাহলে ত্বক অনেক রুক্ষ হয়ে পরে।

৩. ময়শ্চারাইজিং

প্রতিদিন অন্তত একবার ময়শ্চারাইজ করা গুরুত্বপূর্ণ। আপনাকে যা করতে হবে তা হল ময়শ্চারাইজ নিয়ে এবং তারপরে এটি আপনার ত্বকে ভাল করে মালিশ করতে হবে।

টিপস

সর্বদা সার্কুলার মোশনে ময়েশ্চারাইজারটি আলতোভাবে ম্যাসাজ করুন। নিচের দিকে ত্বককে টানলে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে চামড়া কুঁচকে যায়। এমনকি স্কিনে ভাঁজ হতে পারে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More