দলে যোগ দিলেন অধিনায়ক, উৎসবের মঞ্চ প্রস্তুত মোহনবাগান তাঁবুতে

দ্য ওয়াল ব্যুরো : মোহনবাগানের উৎসবের মঞ্চ একেবারে তৈরি। রবিবার দুপুরে সল্টলেক বাইপাসের ধারের নামী হোটেলে আই লিগের ট্রফি আসবে। প্রায় সাত মাস পরে যে ট্রফির নাগাল পাবেন সদস্য-সমর্থকরা।

যাঁদের হাত ধরে ট্রফি এসেছিল, তাঁরা থাকতে পারবেন না। কেউ এ মরসুমে থাকলেও দলের সঙ্গে গোয়ায় রয়েছেন। আর অধিকাংশই দল ছেড়ে এবার অন্য শহরে চলে গিয়েছেন। সবুজ মেরুনের যিনি হেডস্যার ছিলেন, সেই কিবু ভিকুনা গোয়ায় রয়েছেন কেরালা ব্লাস্টার্সের কোচ হয়ে। তিনি সমর্থকদের কাছে অনুরোধ করেছেন, উৎসবের ছবি যেন তাঁকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম মারফৎ।

সল্টলেকের হোটেল থেকে খোলা জিপে একটি কাঁচের সুদৃশ্য বাক্সে সেই ট্রফি নিয়ে শুরু হবে মিছিল। শহরের চারটি জায়গা থেকে ওড়ানো হবে বিশেষ বেলুন। সেই চারটি জায়গা হল হাওড়া, ধর্মতলা, দেশপ্রিয় পার্ক এবং হেদুয়া-বিবেকানন্দ রোড। হোটেল থেকে বেরিয়ে কাদাপাড়া বাইপাস, দত্তাবাদ বাইপাস, বেঙ্গল কেমিক্যাল বাইপাস ধরে মিছিল যাবে উল্টোডাঙ্গা হাডকো মোড়ে।

তার পরে সমর্থকদের ওই মিছিল যাবে অরবিন্দ সেতু ধরে খান্না, এপিসি রোড ধরে ফড়িয়াপুকুর, শ্যামবাজার পাঁচ মাথার মোড়ে। পরে হাতিবাগান, হেদুয়া, বিবেকানন্দ রোড, গিরীশ পার্ক, সিআর অ্যাভিনিউ, ধর্মতলা হয়ে পৌঁছবে মোহনবাগান ক্লাবে।

শনিবার থেকেই সবুজ মেরুন তাঁবু আলো ঝলমল করছে। পুরো মাঠে আলপনা দিয়ে আঁকা হয়েছে সুদৃশ্য আই লিগ ট্রফি ও পালতোলা নৌকা। সমর্থকদের উচ্ছ্বাস শুধুমাত্র বাঁধভাঙা হওয়ার অপেক্ষা।

এদিকে, গত রাতেই নিউজিল্যান্ড থেকে পৌঁছে গিয়েছিলেন নয়াদিল্লিতে। সেখান থেকে শনিবার দুপুরে গোয়ায় পৌঁছে গেলেন এটিকে-মোহনবাগান স্ট্রাইকার রয় কৃষ্ণা। তাঁর সঙ্গেই মোহনবাগান শিবিরে যোগ দিলেন এটিকে-মোহনবাগানের নয়া বিদেশি ব্র্যাড ইনমান।

ষষ্ঠ এবং সপ্তম বিদেশি হিসেবে দলের সঙ্গে যোগ দিলেন তারা। এর আগে আরেক স্ট্রাইকার ডেভিড উইলিয়ামস, ডিভেন্ডার তিরি, মিডফিল্ডার এডু গার্সিয়া সহ গোয়ায় পৌঁছে গিয়েছিলেন এটিকে-মোহনবাগানের ৫ বিদেশি ফুটবলার। যার মধ্যে কোচ অ্যান্তোনিও লোপেজ হাবাস সহ স্প্যানিশ সহকারীদের সঙ্গেই গোয়ার মাটিতে পৌঁছে গিয়েছিলেন স্প্যানিশ ফুটবলাররাও। ডিফেন্ডার জন জনসন দিনকয়েক বাদেই যোগ দেবেন শিবিরে। সাত নয় বরং এবার স্কোয়াডে আট বিদেশিকে রেখেছে এটিকে-মোহনবাগান ম্যানেজমেন্ট। তবে রেজিষ্ট্রেশন হবে সাত বিদেশিরই।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More