নির্বাসনের ভয়, করোনা স্রোতের মধ্যেই মালদ্বীপে ভাঙা দল পাঠাচ্ছে এটিকে-মোহনবাগান

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কোনও উপায় নেই, খেলতে যেতেই হবে এএফসি কাপে। কারণ এশীয় ফুটবল কনফেডারেশনের কর্তারা পইপই করে সবুজ মেরুন কর্তাদের বলছেন, আপনারা ভাঙা দল হলেও পাঠান, কারণ বাকি দল সবাই আসছে, আপনারা না এলে বড় রকমের শাস্তি হবে। সেই শাস্তি মানে যে আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে নির্বাসন, সেটি নিয়ম বলা চলে।

প্রতিযোগিতার ‘ডি’ গ্রুপে এটিকে-মোহনবাগানের সঙ্গে রয়েছে বাংলাদেশের বসুন্ধরা কিংস ও মালদ্বীপের মাজিয়া এফসি। চতুর্থ দল হিসেবে গ্রুপে যোগ দেবে প্লে-অফে জয়ী দল। বেঙ্গালুরু ও ইগলস এফসি ম্যাচে জয়ী দল ১৪ মে এটিকে মোহনবাগানের বিরুদ্ধে খেলবে।

বুধবার রাতেই এটিকে-মোহনবাগানের এক শীর্ষ কর্তা জানালেন, ‘‘আমরা তো ভেবেছিলাম দলই পাঠাব না, কারণ করোনা ঢেউয়ে সারা বিশ্বই ত্রস্ত। তার মধ্যে আমাদের অনেক ফুটবলার যে সব দেশে থাকে, কিংবা যে সব রাজ্যে সেখানে লকডাউন শুরু হয়ে গিয়েছে। তাদের নিয়ে আসাও সমস্যার। কিন্তু এএফসি-র যা নির্দেশিকা না মানলে শাস্তি হবে, তাই দলকে পাঠাতে হবে।’’

সবুজ মেরুন ক্লাবের পক্ষে সচিব সৃঞ্জয় বসু ফোন করে তাদের বিপক্ষে যে দল খেলবে, তাদের ফোন করেছিলেন। কিন্তু ওই ক্লাবের কর্তারাও বলে দিয়েছেন তারা দল পাঠাবেন। সেটাই সমস্যার হয়ে গিয়েছে। সবাই যাবে, মাঝখান থেকে এটিকে-মোহনবাগান খেলতে না গেলে সঙ্কট তৈরি হবে। তাই এক প্রকার বাধ্য হয়ে এএফসি কাপ খেলতে আগামী ১০ মে মালদ্বীপে যাচ্ছেন দলের ফুটবলাররা।

এএফসি কাপে ভাঙা দলই পাঠাবে ক্লাব। কারণ রয় কৃষ্ণ, ডেভিড উইলিয়ামসদের পাওয়া যাবে না। আসতে পারবেন না কার্ল ম্যাকহুগও। একমাত্র তিরিকে আনার চেষ্টা করছেন কর্তারা, সঙ্গে কোচ আন্তোনিও লোপেজ হাবাসকে। তাঁরা সরাসরি মালদ্বীপে চলে যাবেন।

সবুজ মেরুন কর্তাদের হয়ে এএফসি-তে সওয়াল করেছিলেন ফেডারেশন কর্তারা। তাদেরও বলে দিয়েছে, এটিকে-মোহনবাগানকে আসতেই হবে যতই কঠিন পরিস্থিতি থাকুন না কেন। সেই কারণেই দলের ফুটবলারদের কোভিড পরীক্ষার জন্য কাল বৃহস্পতিবার তাঁবুতে আসতে বলা হয়েছে।

তার মধ্যে আবার খেলার চারদিন আগে যেতে হবে মালদ্বীপে, পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার কারণেও আগে যেতে চাইছেন ফুটবলাররা। সেই মতো বিমানের টিকিট করতে দেওয়া হবে।

 

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More