ইনজুরি টাইমে ডেভিডের গোলে জয়ের মুখ দেখল এটিকে-মোহনবাগান

দ্য ওয়াল ব্যুরো: একটি পরিসংখ্যান রীতিমতো চমকপ্রদ মনে হয়েছে। এটিকে-মোহনবাগান বৃহস্পতিবার ম্যাচের আগে পর্যন্ত মোট ১১টি গোলের মধ্যে ১০টি করেছিল বিরতির পরেই। আবার চেন্নাইয়ান এফসি মোট ১২টি গোল হজম করেছে, তার মধ্যে দ্বিতীয়ার্ধেই নয়টি।

দুটি দলের এমন তথ্য পরিবেশন করে ধারাভাষ্যকাররাও আশায় ছিলেন এটিকে মোহনবাগান দ্বিতীয়ার্ধে গোল করে জয় তুলে আনবে। এবং সেটাই ঠিক হল, খেলার ইনজুরি টাইমে জাভির কর্ণার থেকে ডেভিড উইলিয়ামসের দুর্দান্ত হেডে হাবাসের দল ১-০ গোলে হারাল চেন্নাইয়ান এফসি-কে। ডেভিড নেমেছিলেন মনবীরের বদলে। এই জয়ের ফলে ১২ ম্যাচে এটিকে-মোহনবাগানের পয়েন্ট ২৪, মুম্বই সিটি এফসি একটি ম্যাচ কম খেলে ২৬ পয়েন্টে রয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুটি দলের এমন খেলা হয়েছে, যেটি বিরক্তিদায়ক বললেও কম বলা হবে। একটি দল তিনটি পাসও ঠিকভাবে বাড়াতে পারেনি। খেলার শেষ ১৫ মিনিট বাদে দুটি দল কতবার গোলের সুযোগ পেয়েছে, নোটবুক খুলেও দেখা যাচ্ছে না।

আইএসএলের মতো টুর্নামেন্ট জৌলুস হারাচ্ছে এরকম ফুটবলের কারণেই। একঝাঁক অযোগ্য বিদেশীদের নিয়ে এসে এই ফুটবল ঘিরে আকর্ষণ কমছেই। কয়েকটি ম্যাচে কিছু দারুণ মুভ, কিছু দুরন্ত গোল হয়েছে ঠিকই, গড়পড়তা খেলাই একেবারে দ্বিতীয় সারির।

এদিন এটিকে-মোহনবাগান একেবারেই ভাল খেলতে পারেনি। এতগুলি ম্যাচের পরেও দলের মধ্যে কোনও সমঝোতা নেই। কোচ হাবাস শুধুই বলেন, ভাল ফুটবল নয়, ম্যাচ জয়ের জন্য আমরা সবসময় ঝাঁপাই, সেটাই মুখ্য বিষয়। কিন্তু একটা ২১ কোটি টাকা দলের খেলা কেন উচ্চমানের হবে না, সেটিও জবাব চাওয়া সমর্থকদের কাছে কাম্য।

খেলা যত গড়িয়েছে ততই বিরক্তি বেড়েছে। দলের মাঝমাঠ সচল তো ছিলই না, উপরন্তু কোচ হাবাস ৩-৫-২ ছকে খেলে দলের ফুটবলারদের আরও বিভ্রান্ত করেছেন। তিনি প্রতিদিন দলের ছক বদল করলে সেটি দলের পক্ষে কখনই ইতিবাচক হচ্ছে না।

চেন্নাইয়ের খেলাও ভাল হয়নি, তারা কর্ণার আদায় করেছে ঠিকই, কিন্তু কাজের কাজ করতে পারেনি। তাদেরও অজস্র মিস পাস হয়েছে।

এটিকে মোহনবাগানের কার্ল ম্যাকহুগ আসার পরে খেলায় ঝাঁঝ বেড়েছে অনেকটাই। তিনি একটি শটও নিয়েছিলেন, বিপক্ষ গোলরক্ষক না পরাস্ত করলে গোলই হয়ে যেত। এমনকি জাভির শটও চেন্নাইয়ের গোলরক্ষক অনবদ্য বাঁচিয়েছেন।

হাবাসের দলের সবচেয়ে চিন্তার কারণ রয় কৃষ্ণের গোল না পাওয়া, তিনি ক্রমে হতাশ করছেন। ফর্মের ধারেকাছে নেই। কোচের কৌশলে দল আরও খোলসে ঢুকে গিয়েছে। যদি না ডেভিড উইলিয়ামস ম্যাচের ঠিক ৯০ মিনিটে গোল করতেন, তা হলে এটিকে মোহনবাগান আবারও পয়েন্ট হারাত।

তবে ম্যাচের একেবারে শেষ টাইমে তিরির গোল লাইন সেভ না হলে এদিনও খেলার ফল ১-১ হতো। এটিকে-মোহনবাগান গোলরক্ষক অরিন্দর মারাত্মক ভুল করেছিলেন বক্স থেকে বেরিয়ে এসে।

 

 

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More