সুপার লিগকে কোনওভাবেই স্বীকৃতি নয়, জোর প্রতিবাদ করলেন ফিফা প্রেসিডেন্ট ইনফান্তিনো

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভারতের অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন, আই লিগের পাশাপাশি যখন আইএসএল শুরু করা নিয়ে নানা বিতর্ক এসেছিল। সেইসময় ফিফা একেবারেই নিশ্চুপ ছিল। তারা এই বিষয়ে নাকই গলায়নি।

এবার নিজের ঘর পুড়ছে দেখে ফিফা জেগে উঠেছে। কারণ ইউরোপিয়ান ফুটবলে সুপার লিগের দামামা বেজে গিয়েছে। বিশ্বের সেরা ১২টি ক্লাব একজোট হয়ে আসরে অবতির্ণ। তারা বলছে, চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গুরুত্ব ক্রমেই কমতে থাকবে, বরং সুপার লিগই হবে আসল লিগ।

দিন তিনেক ধরে চলা এই বিতর্কে অবশেষে মুখ খুললেন ফিফা প্রেসিডেন্ট ইতালির বাসিন্দা জিয়ান্নি ইনফান্তিনো।

সুইজারল্যান্ডে উয়েফার সাংবাদিক সম্মেলনে ইনফান্তিনো বলেন, ‘‘ইউরোপের খেলার মডেল রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব। তাই কেউ যদি নিজেদের পথ বেছে নেয়, তাহলে ওই পথ বেছে নেওয়ার পরিণতিও ভোগ করতে হবে। কাজের পরিণতি তো মেনে নিতেই হবে।’’ তিনি যে প্রকারান্তরে বিশ্বের নামী ক্লাবগুলিকে হুমকি দিলেন, তা পরিষ্কার।

স্পেন থেকে রিয়াল মাদ্রিদ, বার্সেলোনা, অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ, ইংল্যান্ড থেকে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড, ম্যান সিটি, চেলসি, আর্সেনাল, লিভারপুল ও টটেনহাম এবং ইতালি থেকে এসি মিলান, ইন্টার মিলান ও জুভেন্টাস সুপার লিগে অংশ নেওয়ার কথা জানিয়েছে প্রতিষ্ঠাতা ক্লাব হিসেবে। তবে এ টুর্নামেন্ট হবে মোট ২০টি ক্লাব নিয়ে।

সুপার লিগ শুরু করা প্রসঙ্গে ফিফা প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘‘হয় আপনি থাকবেন, নয়তো যাবেন। মাঝামাঝি বলে কিছু নেই। অর্ধেক থাকবেন, অর্ধেক থাকবেন না, তা হতে পারে না। এটা সবার আগে নিশ্চিত হবে।’’

ফিফার পক্ষ থেকে এই বার্তা পাওয়ার পরেই সুপার লিগে অংশগ্রহণকারী ক্লাবগুলোকে হুমকি দিয়ে উয়েফা জানিয়ে দিয়েছে, এমন হলে ঘরোয়া এবং আন্তর্জাতিক সব প্রতিযোগিতা থেকে ক্লাবগুলিকে বহিষ্কার করা হবে। এদিন মন্ট্রেক্সে উয়েফা কংগ্রেসে সেই প্রসঙ্গ উঠতেই বিদ্রোহী ক্লাবগুলিকে এক হাত নিলেন ইনফান্তিনো।

তিনি জানিয়েছেন, “যাঁরা অন্য কোনও পথে যেতে চান, অবশ্যই তাঁদের পছন্দের সঙ্গে যেতে পারেন। কিন্তু তাঁদের এই পছন্দর পথ বেছে নেওয়ার জন্য একমাত্র তাঁরাই দায়বদ্ধ হবেন। হয় তাঁরা থাকবেন। নাহলে চলে যাবেন। এর মাঝামাঝি কোনওভাবেই মেনে নেওয়া হবে না। এখনই পরিষ্কার ভাবে সবাইকে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে।”

সুপার লিগের অস্তিত্ব তিনি মানবেন না, সেটিও বলে দিয়েছেন। শীর্ষ কর্তার মন্তব্য, “সুপার লিগকে কোনও ভাবেই ফিফা মেনে নেবে না। এই ইস্যুতে ফিফা সবসময় উয়েফার পাশে থাকবে। এরপরেও যদি কেউ সুপার লিগের দিকে চলে যেতে চায়, বিনা বাধায় চলে যেতে পারে।”

 

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More