মেসিদের নামে অপপ্রচার, ‘বার্সা গেট কেলেঙ্কারি’তে ফেঁসে গ্রেফতার হলেন প্রাক্তন বার্সেলোনা প্রেসিডেন্ট বার্তোমিউ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: লিওনেল মেসির সঙ্গে চুক্তি সংক্রান্ত বিষয়ে তাঁর সঙ্গে তুমুল ঝামেলা হয়েছিল। মনে করা হয়, মেসি গত মরসুমে বার্সেলোনা ছাড়তে পারেননি শুধুমাত্র মারিয়া বার্তোমিউর কারণে। মেসিকে চুক্তির ফাঁসে বন্দী করে বার্তোমিউ ফুটবল রাজপুত্রকে আটকে দিয়েছিলেন, যাতে তিনি অন্য ক্লাবে সই না করতে পারেন।

মেসিরও যাবতীয় রাগ রয়েছে এই নামী প্রশাসকের বিরুদ্ধে। সেই বিতর্কিত বার্সা প্রেসিডেন্টকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। হঠাৎ ক্লাব অফিসে হানা দিয়ে বার্সেলোনার পূর্বতন প্রেসিডেন্টকে আটক করেছে পুলিশ। সঙ্গে গ্রেফতার করা হয়েছে বার্সার প্রধান কার্য নির্বাহী অস্কার গ্রাউ এবং প্রধান আইনজীবী রোম্যান গোমেজকেও।

আলোচিত ‘বার্সাগেট’ কেলেঙ্কারির তদন্তের অংশ হিসেবেই গ্রেফতার করা হয়েছে তাঁদের। গত বছর ‘বার্সাগেট’ দুর্নীতি এবং অন্যান্য কারণে বার্তোমেউ এবং তাঁর পরিচালনা পর্ষদ পুরোটাই পদত্যাগ করেছিল। সেইসময়ই সন্দেহ দানা বাঁধে।

অভিযোগ ছিল, ২০১৭ সালে ক্যাম্প ন্যুয়ে নিজের আধিপত্য বিস্তার ও ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে আইথ্রি নামের এক গণসংযোগ প্রতিষ্ঠানকে অর্থ দিয়েছিলেন বার্তোমেউ। উদ্দেশ্য ছিল বার্সা কিংবদন্তিদের নামে অপপ্রচার চালানোর।

গত ফেব্রুয়ারিতে কে থি জোগাস নামের এক কাতালান গণমাধ্যম বিষয়টি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তাতে দাবি করা হয়, ক্লাবের শীর্ষ কর্তা বার্তোমেউ ক্যাম্প ন্যুয়ে নিজের আধিপত্য বিস্তার ও ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে আইথ্রি নামের এক গণসংযোগ প্রতিষ্ঠানকে অর্থ দিয়েছিল। মিডিয়া ওই কাণ্ডকেই বার্সা গেট কেলেঙ্কারি বলে অভিহিত করে।

সেই সময় কার্লোস পুয়োল, জাভি হার্নান্দেজ, লিওনেল মেসি, জেরার্ড পিকে, কোচ পেপ গুয়ার্দিয়লার নামে সেসব অপপ্রচার চালানোর জন্য অভিযোগের আঙুল ওঠে বার্তোমেউর দিকে। মেসির সঙ্গে সম্পর্ক অবনতির সেটাই সূত্রপাত বলা যেতে পারে।

এমনকি সেইসময় মেসি ক্লাব ছাড়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয়েছিলেন। তাঁর বাবা যদি মেসিকে শান্ত না করতেন, তা হলে এতদিনে তিনি বার্সা ছেড়ে অন্য ক্লাবে চলে যেতেন।

 

 

 

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More