চরম হেনস্থা ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ককে, করোনার দ্বিতীয় টিকা নিতে বারবার নাজেহাল সস্ত্রীক নরি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভারত বলেই মনে হয় এমনটা সম্ভব! না হলে যে মানুষটা দেশের জন্য একটা সময় প্রাণপাত করে ক্রিকেট খেলেছেন, রক্ত ঝরিয়েছেন, তিনিই কিনা চরম অব্যবস্থার শিকার হয়ে ফিরলেন হাসপাতাল থেকে।

করোনা টিকার প্রথম ডোজটা অনেক আগেই নিয়েছেন, কিন্তু দ্বিতীয় টিকা নিতে গিয়ে এই নিয়ে দ্বিতীয়বার মুম্বইয়ের কামা হাসপাতাল থেকে ফিরলেন নরি কনট্রাকটরকে। ৩১টি টেস্ট খেলা ভারতের প্রাক্তন অধিনায়কের সঙ্গে ছিলেন তাঁর স্ত্রী ডলিও কনট্রাকটরও (৮৭)। এমনকি ৮৮বছরের এই নামী প্রাক্তনের ছেলে হোসেদারও (৬১) ছিলেন।

শনিবার দ্বিতীয় ডোজের আশায় দ্বিতীয়বারের মতো হাসপাতালে গিয়েছিলেন নরি। কিন্তু হাসপাতাল থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়, এই মুহূর্তে টিকা নেই, এলে জানিয়ে দেওয়া হবে। কিন্তু আগেও তো এমন বলা হয়েছিল, তার কি হবে? এই নিয়ে প্রশ্নের জবাবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ক্ষুব্ধ হয়, তারা জানায়, টিকা না থাকলে কী আকাশ থেকে এনে দেবে?

দৃষ্টিশক্তিহীন নরি ছেলে হোসেদারের সহায়তায় গিয়েছিলেন মুম্বইয়ের হাসপাতালে। কিন্তু টিকা না থাকায় হাসপাতালে ঢুকতেও দেওয়া হয়নি তাঁকে। হাসপাতালের সঙ্গে যখন ছেলে কথা বলছিলেন, সেইসময় রোদে ঠায় দাঁড়িয়েছিলেন নরি ও তাঁর স্ত্রী।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হোসেদার কনট্রাকটর জানিয়েছেন, ‘‘করোনা টিকার জন্য আগেই আমরা আগেই নাম লিখিয়ে গিয়েছিলাম, এর আগেও একইভাবে আমাদের হেনস্থা করা হয়েছে, এই একই ঘটনা এবারও ঘটল। জানি না, এর কোনও সুরাহা হবে কিনা!’’

হোসেদার লিখেছেন, ‘‘টিকা নেওয়ার জন্য আমার বাবা-মাকে তৈরি করতে তিন ঘণ্টা করে লাগে। চলৎশক্তিহীন একজন মানুষের জন্য বাইরে আসা-যাওয়া খুবই কষ্টের ব্যাপার। যেহেতু ভ্যাকসিন নেই, তাহলে কেন আমাদের তারিখ দেওয়া হচ্ছে?’’

গত ৫ মার্চ করোনা টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন নরি ও তাঁর স্ত্রী। নিয়মানুয়ায়ী ৮ সপ্তাহের মধ্যে দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার চেষ্টা করেছেন তাঁরা। কিন্তু এখন প্রায় ১০ সপ্তাহেও নিতে পারেননি দ্বিতীয় ডোজ। তাই নিজের ক্ষোভ ও হতাশা উগড়ে দিয়েছেন তাদের ছেলে হোসেদার।

মুম্বই সংবাদমাধ্যমকে ভারতের নামী প্রাক্তন তারকার পুত্র বলেছেন, ‘‘আমরা বুঝতে পারছি যে ভ্যাকসিনের অভাব রয়েছে, কিন্তু তারপরেও আমাদের দিন কেন বলা হচ্ছে? আর তাছাড়া বাবা দেশের হয়ে সেবা করেছেন, তাঁকে কেন এই হেনস্থার শিকার হতে হবে? বোর্ড থেকে কেউ কিছু করতে পারেন না?’’

Leave a comment

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More