ইডেন পেতে পারে ভারত-ইংল্যান্ড একদিনের সিরিজ, বিসিসিআইয়ের ইমেলের অপেক্ষায় সিএবি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আহমেদাবাদের মোতেরায় শেষ টেস্টের পরে পাঁচটি টি ২০ ম্যাচ খেলবে ভারত-ইংল্যান্ড। তারপরেই রয়েছে তিনটি একদিনের ম্যাচের সিরিজ। সেই সিরিজ খেলার কথা পুণেতে। কিন্তু সম্প্রতি মহারাষ্ট্রের করোনা গ্রাফ চিন্তায় ফেলেছে বিসিসিআইকে। এই পরিস্থিতিতে সেখানে ম্যাচ করার সম্ভাবনা কম। মাঠ বদল করার সিদ্ধান্ত অনেকটাই পাকা। আর নতুন মাঠের তালিকায় সবার আগে রয়েছে কলকাতার ইডেন গার্ডেনস। সব কিছু ঠিকঠাক চললে ইডেনেই হতে পারে একদিনের সিরিজ।

দ্বিতীয় টেস্ট থেকে মাঠে ৫০ শতাংশ দর্শক ঢোকার অনুমতি দিয়েছে বিসিসিআই। আর তারপরেই বদলে গিয়েছে মাঠের ছবিটা। দর্শকদের সামনে খেলার উন্মাদনা ক্রিকেটারদের শরীরী ভাষাতেই বোঝা যাচ্ছে। কিন্তু মহারাষ্ট্রে যা কোভিড পরিস্থিতি তাতে সেখানে ম্যাচ হলেও দর্শকদের মাঠে ঢোকা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে। আর দর্শক না থাকলে একটা আর্থিক লোকসানের বিষয়ও রয়েছে।

বিসিসিআই সূত্রে খবর, একদিনের সিরিজের মাঠ বদলের সম্ভাবনা অনেকটাই। সামান্য কিছু কাজ বাকি। এই মুহূর্তে যে যে স্টেডিয়ামে বিজয় হাজারে ট্রফি খেলা হচ্ছে তার মধ্যেই একটি স্টেডিয়ামে সরে যাবে সিরিজ।

এই মুহূর্তে যে ক’টি স্টেডিয়ামে বিজয় হাজারে টুর্নামেন্ট হচ্ছে তার মধ্যে চারটি স্টেডিয়াম উল্লেখযোগ্য। কলকাতার ইডেন গার্ডনস, বেঙ্গালুরুর চিন্নাস্বামী স্টেডিয়াম, ইন্দোরের হোলকার স্টেডিয়াম ও রাজস্থানের সওয়াই মান সিং স্টেডিয়াম। এর মধ্যে হোলকার ও সওয়াই মান সিং বহুদিন ধরে আন্তর্জাতিক ম্যাচের আয়োজন করেনি। অর্থাৎ প্রধান দাবিদার ইডেন ও চিন্নাস্বামী।

ইডেনের দিকে পাল্লা ভারী হওয়ার কারণ দুটি। এক, ইডেনের মাঠ অনেক বড়। সেইসঙ্গে উইকেটও যথেষ্ট ভাল। চিন্নাস্বামীর থেকে বেশি দর্শক বসতে পারবেন সেখানে। দুই, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বোর্ড সভাপতি হওয়ার পর থেকে বেশি গুরুত্ব পেয়েছে ইডেন। বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ হয়েছে এখানে। এমনকি ভারত প্রথম গোলাপি বলের টেস্টও এখানেই খেলেছে। আসন্ন আইপিএলের মাঠের তালিকাতেও রয়েছে ইডেন।

তবে একটা সমস্যাও রয়েছে। তিনটি একদিনের ম্যাচ হওয়ার কথা ২৩, ২৬ ও ২৮ মার্চ। এদিকে ২৭ মার্চ থেকে বাংলায় শুরু ভোটগ্রহণ। অর্থাৎ প্রথম দফার ভোটের আগের দিন ও পরের দিন রয়েছে ম্যাচ। অবশ্য প্রথম দফার ভোট জঙ্গলমহলের চার জেলায় হওয়ার কথা। কলকাতা ও আশেপাশের জেলা তাতে নেই। ফলে সুরক্ষা দেওয়া সমস্যার নাও হতে পারে। তাও একটা কিন্তু রয়েছে।

এই প্রসঙ্গে ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অফ বেঙ্গল বা সিএবি সচিব স্নেহাশিস গঙ্গোপাধ্যায়কে ফোন করা হলে তিনি বলেন, “সিরিজ ইডেনে হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এখনও বিসিসিআইয়ের তরফে কোনও ইমেল আসেনি। ইমেল এলে সবটা পরিষ্কার হবে।”

এখন দেখার ভোটযুদ্ধের মাঝে ইডেনে ভারত-ইংল্যান্ড ক্রিকেট যুদ্ধের স্বাদও রাজ্যবাসী পান কিনা।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More