টসে জিতলে বল করুক নাইট রাইডার্স, ব্যাটসম্যানদের উপরেই নির্ভর করছে প্লে-অফের ভাগ্য

অশোক মালহোত্রা

এই জন্যই আইপিএলকে বিশ্বের সেরা টি ২০ টুর্নামেন্ট বলা হয়। এত বড় টুর্নামেন্টে আর মাত্র চারটে ম্যাচ বাকি। অথচ এখনও প্ল-অফে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স ছাড়া আর কেউ জায়গা পায়নি। মানে এই চারটে ম্যাচই ঠিক করে দেবে কারা শেষ চারে যাচ্ছে আর কারা দেশে ফিরে আসবে। প্লে-অফে জায়গা পেতে গেলে কঠিন লড়াই অপেক্ষা করছে কলকাতা নাইট রাইডার্সের কাছে। কারণ নিজেরা জিতলেও প্লে-অফে নিশ্চিত নয় তারা।

শেষ চারে উঠতে গেলে কলকাতার সামনে কোন অঙ্ক কাজ করছে। সহজভাবে বলতে গেলে রাজস্থান রয়্যালসের বিরুদ্ধে নিজেদের ম্যাচ জিততে হবে নাইটদের। তারপরেও পাঞ্জাব ও হায়দরাবাদকে তাদের ম্যাচে হারতে হবে। আর পাঞ্জাব কিংবা হায়দরাবাদ কেউ একজন জিতলেও যদি কলকাতা নিজেদের ম্যাচ বড় ব্যবধানে জিতে রানরেট তুলে আনতে পারে তাহলে একটা সুযোগ থাকলেও থাকবে। নইলে নয়।

এই অবস্থা হয়েছে কলকাতার নিজেদের জন্যই। একটা সময় ছিল যখন তিনটে ম্যাচের মধ্যে একটা জিতলেই হত। কিন্তু পাঞ্জাব ও চেন্নাইয়ের বিরুদ্ধে হেরে নিজেদের কাজ নিজেরাই জটিল করেছে মরগ্যানরা। আর এই হারের প্রধান কারণ হল ব্যাটিং ব্যর্থতা। দলের টপ অর্ডার ধারাবাহিক রান পাচ্ছে না। কোনও দিন শুবমান গিল, কোনও দিন নীতীশ রাণা রান পাচ্ছে। কিন্তু একটা ব্যাটিং ইউনিট হিসেবে খেলতে পারছে না তারা। আমি তো বলব দীনেশ কার্তিক ও ইয়ন মরগ্যানের কথা। দলের সবথেকে অভিজ্ঞ দুই ব্যাটসম্যানকে জ্বলে উঠতে হবে আজকের ম্যাচেই। রাজস্থানের বিরুদ্ধে কার্যত ফাইনাল খেলছে নাইটরা। এই ম্যাচে আন্দ্রে রাসেল দলে আসবে কিনা জানি না। কিন্তু যদি একটা ম্যাচেও নিজের রূপ ও ধরতে পারে তাহলে সেটা কলকাতার পক্ষেই ভাল হবে।

টুর্নামেন্টের শেষদিকের ম্যাচগুলোতে আবার প্রধান ফ্যাক্টর হচ্ছে টস। যে দল টস জিতছে, চোখ বন্ধ করে বল নিচ্ছে। প্রতিপক্ষ যত বড় টার্গেটই করুক না কেন রান চেজ হয়ে যাচ্ছে। সেটা আমরা গত কিছু ম্যাচে দেখেছি। তাই টসে জিতলে বল নিক কলকাতা। রান তাড়া করতে আবার বেশি পছন্দ করে রাজস্থান। তাই তাদের হারাতে গেলে প্রথমে বল করে চাপে ফেলতে হবে। আর যদি টসে মরগ্যান হারে তাহলে মাথায় রাখতে হবে বড় রান তুলতে হবে। একমাত্র তখনই পরে প্রতিপক্ষের উপর চাপ দেওয়া যাবে। নইলে নয়।

সব মিলিয়ে বলা যেতে পারে নাইট রাইডার্সের ভাগ্য নির্ভর করছে নিজেদের উপরেই। বেশি ভাল করে বলতে গেলে ব্যাটসম্যানদের উপরে। একটা ম্যাচে একটা ব্যাটিং ইউনিট হিসেবে খেলতে হবে নাইটদের। নইলে ফের একবার খালি হাতেই ফিরে আসতে হবে আমিরশাহী থেকে।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More