ডার্বির আগে ইস্টবেঙ্গলে নতুন থিমসং, এমনকি ইনভেস্টরদের সঙ্গে চুক্তিও

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ডার্বির আগে চেনা মেজাজে ইস্টবেঙ্গল শিবির। আইএসএলের প্রথম ম্যাচ খেলতে নামছে দল। অবশেষে যেন স্বপ্নপূরণ হতে চলেছে। প্রথম ম্যাচ, তাও আবার ডার্বি। এই নিয়ে শিবিরে চাপা একটা টেনশন থাকলেও কোচ রবি ফাউলার পইপই করে বলছেন, ‘‘ডার্বি ভেবে খেলতে নেম না, এটাকেও একটা সাধারণ ম্যাচ হিসেবে ভেবে নাও, দেখবে সব ঠিক হয়ে যাবে।’’

স্বদেশী তারকাদের অনেকেই ডার্বি খেলার অভিজ্ঞতা থাকলেও বিদেশীরা সবাই নবাগত। তাঁরা প্রিমিয়ার লিগে খেলা, এমনকি অস্ট্রেলিয়ায় এ লিগেও খেলেছেন। তাঁরাও জানেন ডার্বি ম্যাচ কিরকম হয়। কিন্তু জানলে তো হবে না, তাঁদের সামনে ভরা যুবভারতীর রোমাঞ্চ এবার পূর্ণ হচ্ছে না।

খেলা গোয়ায়, ওটিও ফুটবলের শহর, কিন্তু হলে কী হবে ফাঁকা স্টেডিয়াম, জৈব সুরক্ষা বলয়ের মধ্যে রয়েছেন ফুটবলাররা। উন্মাদনা অবশ্য টের পাচ্ছেন দলের অনুশীলনে, এমনকি সোশ্যাল মিডিয়ায় নানা পোস্ট দেখে বিদেশী তারকারাও তাল ঠুকছেন শুক্রবার ম্যাচ স্মরণীয় করে রাখতে।

লাল হলুদ শিবিরে অভিনব উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে আগেই। দলের কিংবদন্তি প্রাক্তন তারকাদের ছবি ও তাঁদের সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত জীবনপঞ্জী হোটেলের দেওয়ালে আটকানোর ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

এবার আরও একটি উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ১৯২৫ সালে প্রথম কলকাতা ডার্বিতে ইস্টবেঙ্গল জিতেছিল ১-০ গোলে, গোলদাতা ছিলেন নেপাল চক্রবর্তী। সেই ম্যাচের ক্লিপিংস নিয়ে সোমবার আলোচনা হয়েছে হোটেলে। কোচ ফাউলারই এই বিষয়ে ফুটবলারদের ব্যাখ্যা করেছেন। বার্তাও দিয়েছেন, ‘‘এরকম একটি ক্লাবের জার্সি গায়ে তোমরা প্রথম খেলতে নামছ, যে ক্লাবটি ঐতিহাসিক ডার্বির প্রথম জয়ী দল। সেবারও জয় দিয়ে শুরু হয়েছিল, এবারও আইএসএলে আমরাই জয় দিয়ে শুরু করব।’’

এই ইতিহাস ফেরানোর কাজটি কোচ এত সুনিপুনভাবে করেছেন যে ফুটবলাররা সবাই তেতে গিয়েছেন। তার মধ্যেই এক ফ্যান ক্লাবের উদ্যোগে নতুন একটি থিম সংয়ের আত্মপ্রকাশও ঘটতে চলেছে মঙ্গলবারই। ওই থিম সং করা হয়েছে ডার্বির কথা ভেবেই। আইএসএলের ‘ফ্যান ওয়াল’-এ গিয়ে লাল হলুদ সমর্থকরা ওই থিম সং গাইবেন।

ডার্বির আগে ইনভেস্টর শ্রী সিমেন্টের সঙ্গে চুক্তিও সেরে ফেলতে চাইছে ক্লাব কর্তৃপক্ষ। আগে একটা চুক্তি হয়েছিল, তাতে সমর্থকদের স্বার্থরক্ষা হয়নি। সেই নিয়ে চুক্তি কিছুটা রদবদল হয়েছে, তাতে সদস্যদের অধিকার রক্ষিত হবে। ক্লাবে নতুন সদস্যদেরও আহ্ববান করা হয়েছে। যারা আগে সদস্যপদের জন্য আবেদন করেছিলেন, তাঁদের আগে এলে আগের ভিত্তিতে সদস্যপদ দেওয়া হবে। ডার্বির আগে চুক্তিসম্পন্ন করে কর্তারাও স্বস্তির শ্বাস ফেলতে চাইছেন।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More