চেঞ্চো কার?

দলবদলের বাজারে খেলোয়াড় কেনাবেচা নিয়ে জমজমাট ময়দান। এরমধ্যেই নজর কেড়েছে ইষ্টবেঙ্গল ও মিনার্ভা পাঞ্জাব। গত মরশুমের শেষ দিকে ম্যাচ গড়াপেটার অভিযোগই হোক কিংবা নতুন মরশুমে প্লেয়ার কেনা, সব নিয়েই বিতর্কে জড়িয়েছে দুই ক্লাব। নবতম সংযোজন চেঞ্চো।

নতুন মরশুমের শুরুতে ইষ্টবেঙ্গল দাবি করে যে মিনার্ভার চারজন খেলোয়াড় লালহলুদে সই করেছেন। এরা হলেন কাসিম আইদারা, রক্ষিত ডাগর, সুখদেব সিংহ ও দীপক দেবরানি। কিন্তু এই দাবি উড়িয়ে মিনার্ভা মালিক রঞ্জিত বাজাজ ফেডারেশনের দ্বারস্থ হন। ফেডারেশন সূত্রে খবর যে ইষ্টবেঙ্গলকে সাতদিনের মধ্যে চুক্তির প্রমাণ দেখাতে হবে।

এরমধ্যেই ময়দানে খবর রটে যায় যে মিনার্ভার অন্যতম সেরা প্লেয়ার ভুটানের ‘রোনাল্ডো’ চেঞ্চো নাকি ইষ্টবেঙ্গলে সই করেছেন। কিন্তু সর্বভারতীয় এক স্পোর্টস ওয়েবসাইটের বক্তব্য অনুযায়ী চেঞ্চো এখনও খাতায় কলমে মিনার্ভার খেলোয়াড়। রঞ্জিত বাজাজ নাকি নিজেই এমন দাবি করেছেন।

সূত্রের খবর বাজাজ নাকি বলেছেন যে তাঁর দলের বেশিরভাগ খেলোয়ারের সঙ্গেই তাঁর ২০১৯ সাল পর্যন্ত চুক্তি রয়েছে। চেঞ্চোও সেই আওতায় পড়েন। তাই হিসেব মতো চেঞ্চো এখনও মিনার্ভার খেলোয়াড়।

কিন্তু চেঞ্চোকে বিক্রি করতে তাঁর কোনও আপত্তি নেই বলেই জানিয়েছেন মিনার্ভা মালিক। তাঁর বক্তব্য ইষ্টবেঙ্গল না মোহন বাগান কে চেঞ্চোকে কিনতে আগ্রহী সে ব্যাপারে তাঁর কোনও চিন্তা নেই। যে দল তাঁকে সঠিক দাম দেবে তাকেই তিনি চেঞ্চোকে বিক্রি করবেন। সেটা যে কোনও দল হতে পারে।

বাজাজের বক্তব্য তিনি কোনও খেলোয়াড়কে অন্য দলে বিক্রি করে তার থেকে পাওয়া অতিরিক্ত টাকা পরের মরশুমের দল গড়ার ক্ষেত্রে কাজে লাগাতে চান। তাই গত মরশুমের নিজের সেরা প্লেয়ারকে হাতছাড়া করতে যে সহজে বাজাজ চাইবেন না তা তাঁর কথাতেই স্পষ্ট। তাই দলবদলের বাজারে চেঞ্চোকে নিয়ে দড়ি টানাটানি অব্যাহত থাকলো।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More