বাংলাদেশের বসুন্ধরা ক্লাবকে হারিয়েই এএফসি-র নকআউট পর্ব নিশ্চিত করতে চান হাবাস

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মরসুমের শুরু থেকেই দারুণ ফর্মে বিরাজ করছে এটিকে মোহনবাগান। মালদ্বীপে এএফসি কাপের পরপর দুটি ম্যাচে তারা বিপক্ষকে মাথা তুলে দাঁড়াতেই দেয়নি।

প্রথমে বেঙ্গালুরুকে ২-০ গোলে উড়িয়ে দেওয়ার পরে দ্বিতীয় ম্যাচে শনিবার মাজিয়াকে তারা হারায় ৩-১ গোলে। সেই কারণে আত্মবিশ্বাসে ভরপুর সবুজ মেরুন দল। মঙ্গলবার তাদের সামনে বাংলাদেশের বসুন্ধরা কিংস ক্লাব। যাদের হারাতে পারলে পরের রাউন্ডে নিশ্চিত হয়ে যাবেন রয় কৃষ্ণরা।

মঙ্গলবার বাংলাদেশের বসুন্ধরা কিংসের বিরুদ্ধে ১ পয়েন্ট পেলেই চলে যাবে পরের রাউন্ডে। কোচ আন্তোনিও লোপেজ হাবাস অবশ্য জয় দিয়েই গ্রুপ লিগের যাত্রা শেষ করতে চাইছেন।

মাজিয়াকে হারানোর পরে এটিকে মোহনবাগান কোচ জানিয়েছেন, ‘‘প্রথমার্ধে আমরা ঠিক ভাবে নিজেদের খেলা খেলতে পারিনি। সেই কারণে বিরতিতে দলের কৌশল বদলাই, তাতেই সবকিছু বদলে গিয়েছে। দারুণ খেলেছে হুগো, ও নেমেই দলের চেহারা বদলে দিয়েছে।’’

পরের ম্যাচের ভাবনা শুরু করে দিয়েছেন কৃষ্ণদের কোচ। তিনি মনে করছেন, বসুন্ধরাও মরণ কামড় দেওয়ার চেষ্টা করবে, তাই অলআউটই খেলতে হবে। বসুন্ধরা অচেনা প্রতিপক্ষ। আমাদের কাছে কাজটা কঠিনই। ওদেরও আমরা সমান গুরুত্ব দেব।’’

এক সপ্তাহের মধ্যেই দুটি ম্যাচ খেলতে হয়েছে, তাও এমন গরমের মধ্যে। সেই কারণেই বিশ্রাম দিয়েই ফুটবলারদের ঘুরিয়ে ফিরিয়ে খেলাচ্ছেন হাবাস। রিজার্ভ বেঞ্চের ফুটবলাররাও মাঠে নেমে নিজেদের সেরাটা উজাড় করে দিচ্ছেন। দলের এই সার্বিক পারফরম্যান্সে বেশ খুশি স্প্যানিশ কোচ। রবিবার অনুশীলনে ছুটি দেন হাবাস।

দলের প্রাণভোমরা রয় কৃষ্ণ হতাশ হয়েছেন গত ম্যাচে তাঁর একটি গোল অফসাইডের কারণে বাতিল হয়েছে। সেই প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘‘আমার মনে হয় রেফারি ওটা গোল দিলেও পারতেন। ওই গোল বাতিল হতেই আমি গোলের জন্য মরিয়া ছিলেন। হুগোর পাস পেতেই সেটি কাজে লাগিয়েছি।’’

রয় কৃষ্ণ ও মনবীর সিংরা মনে করছেন, তাঁদের দলটি এমনভাবে খেলছে, ম্যাচে পিছিয়ে পড়েও জিততে পারবে, এই আত্মবিশ্বাস তাদের রয়েছে। সেটি সম্ভব হয়েছে কোচের জন্যই।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.