এসেই জিতলেন, সেরা হলেন ম্যাচেরও, তবুও মন ভাল নেই ফিনল্যান্ডের কাউকোর

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: তিনিই সেই ফুটবলার, যিনি ডেনমার্কের ক্রিশ্চিয়ান এরিকসেনের হৃদরোগের দিন মাঠে ছিলেন। ইউরো কাপের মঞ্চে খেলা নামী মিডফিল্ডার জনি কাউকোই ডার্বির ম্যাচের সেরা হয়েছেন।

ইউরোতে যেদিন মাঠে ছিলেন, সারা মাঠ ভর্তি ছিল। ড্যানিশ এরিকসেনকে যখন স্ট্রেচারে শুয়ে মাঠের বাইরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল, সেদিনও তাঁকে দেখতে কাউকো ছুটেছিলেন। সব তাঁর মনে রয়েছে।

ইউরোর গ্যালারিতে দর্শকরা কীভাবে এরিকেসনের জন্য প্রার্থনা জানিয়েছেন, সব মনে রয়েছে। তাই ফুটবলে দর্শক না থাকলে সেটি যে নুন ছাড়া তরকারি, তা তিনি জানেন। সেই হিসেবেই ম্যাচের সেরা হয়েও কাউকো বলছেন, ‘‘ফুটবল কী দোষ করল, মাঠে দর্শকদের মধ্যে ডার্বি জিততে পারলে ভাল লাগতো। দর্শকরাই তো আমাদের প্রেরণা।’’

সবুজ মেরুন সমর্থকদের আবেগকে শ্রদ্ধা জানিয়ে বাগানের মাঝমাঠের স্তম্ভ এও জানিয়েছেন, ‘‘সামনের বার নিশ্চয়ই ভরা মাঠে খেলা হবে। আমি জানি একটা বড় দলের সমর্থকদের আবেগ কীরকম হয়, আমার সেই অভিজ্ঞতা রয়েছে।’’

প্রথম বার কলকাতা ডার্বি খেলতে নেমেছিলেন কাউকো। তিনি বলেন, “দুর্দান্ত! আমি জানি ডার্বি কেমন হয়। আগেও অন্য শহরে অনেক ডার্বি খেলেছি। সমর্থকদের কাছেও এই ম্যাচ নিয়ে উত্তেজনা থাকে। যে ভাবে জিতেছি তাতে আমি খুশি। আশা করব সমর্থকরা উপভোগ করেছেন।”

ম্যাচের প্রথম ২২ মিনিটেই তিন গোল হয়ে যাওয়ার পরে বাকি ম্যাচে আর গোল করতে পারেনি এটিকে-মোহনবাগান। সেই নিয়ে হতাশ লেগেছে কাউকোকে। তিনি বলেছেন, ‘‘হয়তো আমাদের মধ্যে দ্বিতীয়ার্ধে গা ছাড়া ভাব চলে এসেছিল, না হলে জয়ের ব্যবধান আরও বাড়ত। তবে দারুণ একটা ম্যাচ খেলেছি আমরা, দলে আমাদের ভাল কয়েকজন তারকাও রয়েছে।’’

মুম্বই সিটির বিরুদ্ধেও ভাল খেলতে মরিয়া কাউকো। হাবাসের দলের নামী তারকা জানিয়ে রেখেছেন, ‘‘মুম্বই সিটি ভাল দল, অভিজ্ঞরা রয়েছে, ওদের বিপক্ষেও হালকা দেওয়া যাবে না, হারলে ডার্বি জেতার আনন্দ চলে যাবে।’’

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.