ঋষভের সেঞ্চুরি হয়তো দাম পাবে না, হারের অদূরে ভারত

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: খুব বড় অঘটন না ঘটলে ভারতীয় দল চলতি সিরিজ হারতে চলেছে। দক্ষিণ আফ্রিকার জয়ের জন্য আর দরকার মাত্র ১১১ রান, হাতে আট উইকেট। শামি-বুমরা-অশ্বিনরা বিরাট কিছু না করে ফেললে প্রোটিয়ারা সহজেই ম্যাচ বের করে দেবে।

ভারতীয় দলের ব্যাটসম্যানরা ফের ব্যর্থ। গত টেস্টে যেভাবে শেষ করেছিলেন, সেইভাবেই যেন শুরু করেছেন কেপ টাউন টেস্টে। দ্বিতীয় ইনিংসে একা ঋষভ পন্থ বুক চিতিয়ে ১০০ রানের ইনিংস খেলেছেন, না হলে বাকিরা ডাহা ফেল। বিরাট কোহলি করেছেন ২৯ রান।

ঋষভের ১০০, আর কোহলির ২৯ রান ছাড়া বাকিদের মোট রান ৬৯। বিপক্ষ দলের তিন পেসার রাবাদা, জানসেন, এনগিডি মিলে ভারতীয়দের কাঁপুনি ধরিয়ে দিয়েছেন। জানসেন চারটি উইকেট পেয়েছেন ৩৬ রানে।

দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র একটি উইকেট খুইয়েই ১০০ রানের গণ্ডি পার করল দক্ষিণ আফ্রিকা। আর তাতেই যেন আরও উজ্জ্বল হয়ে উঠল প্রোটিয়াদের তৃতীয় টেস্ট তথা সিরিজ জয়ের স্বপ্ন। দিনের শেষে এলগারদের সংগ্রহ ১০১/২।

মাক্রামকে দ্রুত প্যাভিলিয়নে ফেরানো গেলেও ক্রিজে জাঁকিয়ে বসেন অধিনায়ক এলগার এবং পিটারসেন। পাঁচ দিনের ফরম্যাটে দারুণ ছন্দে ধরা দিচ্ছেন পিটারসেন। আর তৃতীয় দিনের শেষে ৪৮ রান করে অপরাজিত রইলেন তিনি। প্রোটিয়ারা একশোর গণ্ডি পেরনোর পর এলগারকে প্যাভিলিয়নে ফেরান বুমরা। জয়ের জন্য ১১১ রান প্রয়োজন দক্ষিণ আফ্রিকার। হাতে দুটি দিন এবং আট উইকেট।

বুধবার এগিয়ে থেকেই দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করেছিল টিম ইন্ডিয়া, কিন্তু শুরুতেই টপ অর্ডারে ধস নামান রাবাডারা। দুই ওপেনার মায়াঙ্ক আগরওয়াল এবং কেএল রাহুল অল্প রানে ফিরলে হাল ধরেন কোহলি ও পূজারা। কিন্তু ক্যাপ্টেনের সঙ্গে ক্রিজে টিকে থেকে বড় পার্টনারশিপ গড়তে পারেননি পূজারা।

৯ রানেই ফিরে যান পূজারা। একই হাল রাহানের। রাবাডার ডেলিভারিতে এলগারের হাতে ক্যাচ তুলে মাত্র ১ রানে আউট হন তিনি। আর তারপরই নেটদুনিয়ায় শুরু হয় জোর সমালোচনা। ব্যাট হাতে ব্যর্থ হয়েছেন কোহলিও। নেট মাধ্যমে বলা হয়েছে, আর কতদিন এই দুই জুটিকে বয়ে বেড়ানো হবে? দিনের পর দিন তাঁরা ব্যর্থ, আসল সময়ে কিছু করে উঠতে পারছেন না, এবার বাদের মুখে পূজারারা।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.