বিরাটের নেতৃত্ব কাড়া নিয়ে রোষের মুখে সৌরভ, উঠছে গ্রেগ-মহারাজ সম্পর্কের প্রসঙ্গও

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ইতিহাস ফিরে ফিরে আসে। যে কোনও ঘটনারই প্রতিক্রিয়া রয়েছে, থাকবেই। নাহলে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ও গ্রেগ চ্যাপেলের পুরনো প্রসঙ্গও মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে। বলা হচ্ছে, গ্রেগ যেমনভাবে সৌরভের অধিনায়কত্ব কেড়েছিলেন, তাঁকে দল থেকে বাদ দিতে উদ্যত হয়েছিলেন। বিরাট কোহলির ক্ষেত্রে সেটাই করা হয়েছে। আর এই ঘটনায় অবাক করার মতো রোষের মুখে সৌরভই।

এও বলা হচ্ছে, সৌরভ ও রাহুল দ্রাবিড় জুটির শীতল মাথাই কোহলির ওয়ান ডে-র নেতার মুকুট কেড়ে নিয়েছে। কেউ কেউ আবার কোহলি প্রসঙ্গে বলছেন, অনিল কুম্বলে কোচ থাকাকালীন তাঁকে যেভাবে হেনস্থা করেছিলেন বিরাট, সেটাই তাঁর জীবনে বুমেরাং হিসেবে ফিরে এসেছে।

২০০৫ সালে টানা অফ ফর্মের জেরে সৌরভকে ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। সঙ্গে ছিল তত্‍কালীন ভারতীয় কোচ গ্রেপ চ্যাপেলের বিস্ফোরক ইমেল। চ্যাপেল দাবি করেছিলেন, ভারতীয় ক্রিকেট দলের নেতৃত্ব দেওয়ার যোগ্য নন সৌরভ। তাঁর আচরণে দলের ক্ষতি হচ্ছে। সেইসময় সৌরভ ভারতীয় বোর্ডকে পাশে পেয়েছিলেন, এমনকি সতীর্থদের আস্থাও পেয়েছিলেন।

বিরাট কোহলির ক্ষেত্রে কেন অন্যথা হবে। তারচেয়ে বড় কথা, পাঁচবছরে কোহলির নেতৃত্বের রেকর্ড ভালই, প্রায় ৭০ শতাংশ সাফল্য। তারপরেও তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হল, একটি টুইটের মাধ্যমে। বোর্ড থেকে কেউ কোনও বিবৃতি পর্যন্ত দিলেন না। এটা কি প্রাপ্য ছিল কোহলির?

বিরাটের অনুরাগীরা জানিয়েছেন, সৌরভের উচিত ছিল বিষয়টি নিয়ে সহানুভূতির সঙ্গে বিচার করা। তিনি ওই পথেই হাঁটলেন না। তিনি নিজে সামনে এসে কোনও বিবৃতি দিলেন না, এমনকি কোনও সাংবাদিক বৈঠক হল না। এও মনে করা হচ্ছে, রাহুল দ্রাবিড়ের সঙ্গে পরামর্শ করেই বোর্ড কর্তারা এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

আবার অনেকের ধারণা, টি ২০ বিশ্বকাপে নিদারুণ ব্যর্থতার পরেই কোহলিকে সরিয়ে রোহিতকে টি ২০ এবং ওয়ান ডে-র নেতা করা হবে, সেটি পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল।

 

 

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.