সতীর্থদের ওপর বিরক্ত, প্যারাগুয়ে ম্যাচে দেশের হয়ে নয়া নজির গড়তে চলেছেন মেসি

0

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ফুটবল বিশেষজ্ঞরা প্রায়শই বলে থাকেন, কেন লিওনেল মেসি আর্জেন্টিনার হয়ে সফল হতে পারেন না? এই নিয়ে নানা প্রশ্ন ঘুরপাক খায়। বলা হয়, বার্সেলোনায় সতীর্থ হিসেবে মেসি যাঁদের পান, সেই গোত্রের সেরা তারকাদের পান না জাতীয় দলে। সেখানে মেসির চেয়ে অনেক নিচের মানের ফুটবলার থাকে, যারা জানেন না মেসির খেলার ধরন, তিনি একটা করতে চাইলে, সেটি তাঁদের বোধগম্য হয় না।

গত উরুগুয়ে ম্যাচে সেটাই ঘটেছে মেসির ক্ষেত্রে। তিনি একটি ফ্রিকিক নেওয়ার সময় সতীর্থদের পাস দিতে চাইছিলেন, কিন্তু কেউ সেই পাস নিতেই আসেননি। এই নিয়ে মেসিকে বিরক্ত হতে দেখা গিয়েছে।

গত শনিবার ভোরে উরুগুয়েকে ১-০ গোলে হারিয়ে চলতি কোপা আমেরিকায় নিজেদের প্রথম জয় তুলে নিয়েছে আর্জেন্টিনা। এর আগে চিলির সঙ্গে ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র করেছিল ১৪ বারের কোপার শিরোপাধারীরা।

এবার প্যারাগুয়ের বিপক্ষে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে মাঠে নামবে লিওনেল স্কালোনির ছেলেরা। মঙ্গলবার ভারতীয় সময়ে সকাল সাড়ে পাঁচটায় ম্যাচ শুরু হবে। এ ম্যাচে নিজেদের একাদশে একাধিক পরিবর্তন আনতে বাধ্য হচ্ছেন আর্জেন্টিনার কোচ স্কালোনি, এমনটাই জানাচ্ছে আর্জেন্টাইন সংবাদমাধ্যম টিওয়াইসি স্পোর্টস।

চলতি কোপা আমেরিকার প্রথম দুই ম্যাচে আর্জেন্টিনার শুরুর একাদশে জায়গা না পেলেও, প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচে সুযোগ পাচ্ছেন সার্জিও আগুয়েরো। চিলির বিপক্ষে শেষ দশ মিনিটের জন্য মাঠে নামানো হয়েছিল তাঁকে, উরুগুয়ে ম্যাচের পুরো সময়ই কাটিয়েছেন বেঞ্চে।

অবশেষে এবার ম্যাচের শুরু থেকেই খেলার সুযোগ পাচ্ছেন তারকা ফরোয়ার্ড আগুয়েরো। মূলত তরুণ স্ট্রাইকার নিকোলাস গঞ্জালেজের চোটের কারণেই মূল একাদশে আসছেন আগুয়েরো। উরুগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচের পর করা দলীয় অনুশীলনে খুব একটা স্বস্তিতে দেখা যায়নি নিকোলাসকে।

আর্জেন্টিনার শুরুর একাদশে পরিবর্তন আছে আরও। কারণ চোটের সমস্যা রয়েছে মিডফিল্ডার জিওভানি লো সেলসোরও। বাঁ-পায়ের গোড়ালির চোটে দলের সঙ্গে অনুশীলন করেননি তিনি। অবশ্য করার সুযোগও নেই। কেননা গোড়ালিতে ব্যান্ডেজ বেঁধে দিয়েছেন দলের চিকিৎসকরা। তাঁর জায়গায় সুযোগ পেতে পারেন লেয়ান্দ্র পারেদেস বা এজেকুয়েল পালাসিওস।

এদিকে উরুগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচে চার ডিফেন্ডারের মধ্যে তিনজনকেই বদলে দিয়েছিলেন স্কালোনি। এবার প্যারাগুয়ের বিপক্ষেও রক্ষণভাগে বেশ কিছু রদবদল করতে পারেন তিনি। প্রথম ম্যাচের তিন ডিফেন্ডারই ফিরতে পারেন দলে অথবা তাদের মধ্যেই রোটেশন পদ্ধতিতে নামাতে পারেন যেকোন চার ডিফেন্ডারকে।

তার মধ্যেই মেসি প্যারাগুয়ে ম্যাচে একটি মহানজির গড়তে চলেছেন। জেভিয়ার মাসচেরেনোর পরে তিনি প্রথম কোনও তারকা, যিনি দেশের হয়ে সর্বাধিক ম্যাচ খেলার নজির গড়তে চলেছেন। যদিও মেসি দেশের হয়ে চারটি বিশ্বকাপ ও ছয়টি কোপা খেলেও একটিতেও দলকে সেরা করতে পারেননি। তবে শেষ ১৫ বছরে তিনিই দলের মধ্যমনি, এটিও যে কোনও প্রেক্ষাপট থেকে ঐতিহাসিক। মারাদোনাকেও এতদিন ধরে দেশকে টানতে হয়নি।

You might also like
Leave A Reply

Your email address will not be published.