করোনা প্রাণ কাড়ল মন্দিরবাজারের বিডিওর, কোভিডে মৃত্যু নোদাখালি থানার আইসিরও

ফের রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন দুই সরকারি আধিকারিক। এঁদের মধ্যে একজন মন্দিরবাজার ব্লকের বিডিও। অন্যজন নোদাখালি থানার আইসি।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: ফের করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল রাজ্যের দুই সরকারি আধিকারিকের। প্রয়াত হলেন মন্দিরবাজারের বিডিও সৈয়দ আহমেদ (৫৬)। করোনায় মারা গেলেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার নোদাখালি থানার আইসি অনিন্দ্য বসুও(৪৭)।

জ্বর ও শ্বাসকষ্টের সমস্যা হওয়ায় ২১ অক্টোবর কলকাতার এম আর বাঙ্গুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল মন্দিরবাজারের বিডিও সৈয়দ আহমেদকে। সেখানেই বুধবার রাতে মৃত্যু হয় এই সরকারি আধিকারিকের। সদালাপী বিডিও সাহেব প্রথম থেকেই কাছের মানুষ হয়ে গিয়েছিলেন মন্দিরবাজার ব্লকের মানুষদের কাছে। উমফান দুর্গতদের ত্রাণ বিলিই হোক, রাস্তা উদ্বোধন প্রত্যেকটি ক্ষেত্রেই নিজে দায়িত্ব নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। করোনা সচেতনতায় প্রচারের জন্য গত কয়েক মাস মন্দিরবাজার ব্লকের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত ছুটে বেড়িয়েছেন।

সেই করোনায় তাঁর চলে যাওয়ায় গভীরভাবে শোকাহত প্রশাসনিক মহল থেকে শুরু করে মন্দিরবাজারের আমআদমি। ইতিমধ্যেই তাঁর মৃত্যুতে শোক বার্তা পাঠিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ডায়মন্ডহারবার মহকুমাশাসক সুকান্ত সাহা বলেন, ‘‘পুজোর আগে যাতে কোনওভাবে মানুষ সমস্যার মধ্যে না পড়েন তারজন্য নিজে দায়িত্ব নিয়ে পাকা রাস্তার কাজ শুরু করেন। সেই রাস্তার উদ্বোধনে আর থাকা হল না তাঁর।’’

করোনার উপসর্গ দেখা দেওয়ায় গত ১২ অক্টোবর আলিপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় নোদাখালি থানার ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক অনিন্দ্যবাবুকে। অবস্থার অবনতি হওয়ায় সেখান থেকে বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিল তাঁকে। সেখানেই বুধবার রাতে মারা যান তিনি।

সামনের সারিতে দাঁড়িয়ে এই মারণ রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করতে গিয়ে রাজ্যের বেশ কয়েকজন সরকারি কর্মী-আধিকারিক, স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ কর্মী কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের প্রাণ কেড়েছে করোনা। সেই তালিকাতেই এবার নাম জুড়ল মন্দিরবাজারের বিডিও এবং নোদাখালি থানার আইসির।

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More