ভোটের আগে কাঠের মিলের পাশে তাজা বোমা উদ্ধার পূর্ব মেদিনীপুরে, তুঙ্গে উঠল কাজিয়া

দ্য ওয়াল ব্যুরো, পূর্ব মেদিনীপুর: রাত পোয়ালেই দ্বিতীয় দফার ভোট। তার আগেই প্রায় এক ডজন বোমার হদিস মিলল পটাশপুরের সাঁয়া গ্রামে। সকাল থেকেই বোমা উদ্ধারের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এই এলাকায়।

বৃহস্পতিবার ভোট নেওয়া হবে নন্দীগ্রাম, পাঁশকুড়া পূর্ব, ময়না, তমলুক, চণ্ডীপুর-সহ জেলার মোট আটটি কেন্দ্রে। এরমধ্যে নন্দীগ্রাম আসনের লড়াইয়ে নজর গোটা রাজ্যের। মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এখানে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন শুভেন্দু অধিকারী। তারই আঁচে তেতে রয়েছে নন্দীগ্রাম ও লাগোয়া এলাকা। তুচ্ছ কারণেও যখন তখন তেতে উঠছে এই এলাকা।

এরমধ্যেই বুধবার সকালে পটাশপুর ১ নম্বর ব্লকের নৈপুর ২ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের সাঁয়া গ্রামে একটি কাঠ মিলের কাছে ১০ থেকে ১২টি তাজা বোমা পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয় মানুষজন। এতগুলি বোমা পড়ে থাকতে দেখে আতঙ্ক ছড়ায়। পুলিশে খবর দেন এলাকার মানুষ। ২৭ তারিখ রাজ্যে প্রথম দফার ভোটের দিনই পটাশপুরে ভোট গ্রহণ করা হয়। তবে যেখানে বোমা মিলেছে সেখান থেকে সবং ও ময়না খুবই কাছে।

পটাশপুরের তৃণমূল প্রার্থী উত্তম বারিক অভিযোগ করেন, বৃহস্পতিবার ভোট। তাই কড়া পাহাড়া রয়েছে নন্দীগ্রাম, পাঁশকুড়া-সহ অন্যান্য এলাকায়। তিনি বলেন, “ভোট হয়ে যাওয়ায় পটাশপুরে এখন নজরদারি অনেকটাই আলগা। বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা তাই ঘাঁটি গেড়েছে পটাশপুরে। সেখানেই তারা গুলি বোমা মজুত করছে। ভোটের দিন এখান থেকে হামলার ছক কষেছে তারা।”

এই অভিযোগ অস্বীকার করে বিজেপির স্থানীয় নেতা বিদেশ পাত্র বলেন, “গুলি-বোমা তৃণমূলের সংস্কৃতি। ভোট লুঠ করতে গুলি বোমার উপরেই ভরসা রাখতে হয় তাদের। মানুষ বিজেপির পাশে রয়েছে। তাই সন্ত্রাস করার কোনও প্রয়োজন হয় না। মানুষের ভোটেই বিজেপি জয়ী হবে বিধানসভা ভোটে।”

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More