ভোট ঘোষণার পরেই সবুজসাথীর সাইকেল বিলি করে নির্বাচনী বিধি ভাঙার অভিযোগ কালিয়াগঞ্জে

নির্বাচন নির্ঘণ্ট ঘোষণার পরেই শুক্রবার গভীর রাতে কালিয়াগঞ্জের বেশ কয়েকটি স্কুলে সবুজসাথী প্রকল্পের প্রচুর সাইকেল এসে পৌঁছয় বলে অভিযোগ। শনিবার স্কুল খুলতেই এই সাইকেলগুলি বিলি বন্টনের কাজ শুরু হয়। এই নিয়ে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি আদর্শ নির্বাচনী বিধি ভাঙার অভিযোগ এনেছে।

দ্য ওয়াল ব্যুরো, উত্তর দিনাজপুর: নির্বাচন ঘোষণা হতেই রাতারাতি সবুজসাথীর সাইকেল বিলি করে নির্বাচনী বিধি ভাঙার অভিযোগ উঠল উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জে। এই নিয়েই শুরু হল রাজনৈতিক চাপানউতোর।

নির্বাচন নির্ঘণ্ট ঘোষণার পরেই শুক্রবার গভীর রাতে কালিয়াগঞ্জের বেশ কয়েকটি স্কুলে সবুজসাথী প্রকল্পের প্রচুর সাইকেল এসে পৌঁছয় বলে অভিযোগ। শনিবার স্কুল খুলতেই এই সাইকেলগুলি বিলি বন্টনের কাজ শুরু হয়। এই নিয়ে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি আদর্শ নির্বাচনী বিধি ভাঙার অভিযোগ এনেছে।

বিজেপির কালিয়াগঞ্জ শহর মণ্ডলের সভাপতি ভবানীচরণ সিংহ অভিযোগ করেন, রাতের অন্ধকারে সবুজসাথী প্র্কল্পের সাইকেল পুলিশ ও শাসক দলের মদতে কালিয়াগঞ্জের বিভিন্ন স্কুলে পৌঁছন হয়েছে। তিনি বলেন, ‘‘আমরা এই বিষয়টি নিয়ে নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ জানাব।’’ সিপিএম নেতা ভরতেন্দ্র চৌধুরী বলেন, ‘‘আমরা চাই এই সাইকেল বিলি বন্টন এই মুহূর্তে বন্ধ করা হোক। নির্বাচন শেষ হলে এই সাইকেলগুলি প্রাপকদের দেওয়া হোক। আমরা এই বিষয় নিয়ে কালিয়াগঞ্জ বিডিওর কাছে অভিযোগ জানাচ্ছি।’’

কালিয়াগঞ্জ শহর তৃণমুল কংগ্রেসের সভাপতি কমল ঘোষ বলেন, ‘‘আমরা নির্বাচনী আচরণ বিধি মেনে চলার পক্ষে। শুক্রবার নির্বাচন ঘোষনা হওয়ার পরেই কালিয়াগঞ্জের বিডিওর সঙ্গে কথা বলে আমরা বিভিন্ন কোড ওফ কন্ডাক্ট সংক্রান্ত পদক্ষেপ নিয়েছি। কিন্তু সবুজসাথী সাইকেল সরকারী দফতর থেকে আসে। আমরা এই বিষয় নিয়ে তেমন কিছু জানি না, তাই এই বিষয় নিয়ে আমাদের কিছু বলা ঠিক হবে না।’’

এই অভিযোগের প্রসঙ্গে প্রশাসনের কর্তারা কোনও উত্তর দিতে না চাইলেও একাধিক স্কুল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, শুক্রবার বিকাল পাঁচটায় বিডিও অফিস থেকে আসা টেলিফোনিক নির্দেশে এই কাজ করা হচ্ছে। কালিয়াগঞ্জ মিলনময়ী গার্লস স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষিকা শিখা সিনহা বলেন, ‘‘এই সাইকেলগুলি কালিয়াগঞ্জ কিষানমান্ডি থেকে বিলি বন্টন করার বিষয়ে কথা থাকলেও শুক্রবার বিকেল ৫ টা নাগাদ বিডিও সাহেবের টেলিফোনের নির্দেশে আমরা এই সাইকেলগুলি স্কুল থেকে বিলি করছি।’’

উত্তর দিনাজপুরের জেলাশাসক অরবিন্দ কুমার মীনা বলেন, ‘‘বিষয়টি সম্পর্কে খোঁজ না নিয়ে কোনও মন্তব্য করব না।’’

You might also like
Comments
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More